• বুধবার, আগস্ট ১২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩২ রাত

ঘুষ না দেওয়ায় গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

  • প্রকাশিত ০৫:৪৯ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৯
পুলিশ
প্রতীকী ছবি

গভীররাতে দরজা খুলতে না চাইলে তারা মামলার ব্যাপারে কথা বলবেন বলে জানায়। তখন আমি দরজা খুলে দেই

যশোরের শার্শায় দু’সন্তানের জননী (৩০) এক গৃহবধূ সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীর।

মঙ্গলবার সকালে স্বপ্রণোদিত হয়ে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে ওই গৃহবধূ যশোর জেনারেল হাসপাতালে আসলে বিষয়টি জানাজানি হয়।

ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ বলেন, “আমার স্বামী একসময় চোরাচালানিদের পণ্য বহন করতেন। কিন্তু এখন কৃষিকাজ করেন। ৯  দিন আগে (২৫ আগস্ট) শার্শার গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই খায়রুল আমাদের বাড়ি থেকে স্বামীকে ধরে নিয়ে যান। এসআই খায়রুল আমাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করায় তাকে ৫০ বোতল ফেনসিডিল দিয়ে তাকে চালান দেওয়া হয়। আমি থানা পুলিশকেও বিষয়টি জানিয়েছি- কিন্তু তারা আমার কথা শোনেননি।”

তিনি অভিযোগ করেন, “ঘটনার ৯দিন পর কাল রাতে (২ সেপ্টেম্বর, রাত আড়াইটার দিকে) এসআই খায়রুল, সোর্স কামারুল এবং গ্রামের আরও তিন-চার চারজন এসে আমাকে ডাকাডাকি করে। অতরাতে দরজা খুলতে না চাইলে তারা মামলার ব্যাপারে কথা বলবেন বলে জানায়। তখন আমি দরজা খুলে দেই। দারোগা খায়রুল ফের ৫০ হাজার টাকা দাবি করে বলেন- তাহলে ৫৪ ধারায় মামলা করে দেবেন। টাকা না দেওয়া নিয়ে দারোগার সঙ্গে আমার ঝগড়াও হয়।”

তিনি বলেন, “একপর্যায়ে খায়রুল ক্ষিপ্ত হয়ে দু’জন আমাকে ঘরের ভেতর নিয়ে ধর্ষণ করে চলে যায়।”

তিনি জানান, তারা চলে যাওয়ার পর ঘটনা প্রতিবেশীদের জানালে তারা মামলা করার পরামর্শ দেন। মামলা করতে হলে হাসপাতাল থেকে পরীক্ষা করাতে হবে। এ কারণে তিনি থানায় না গিয়ে সোজা যশোর জেনারেল হাসপাতালে যান।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহম্মেদ জানান, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই নারী জরুরি বিভাগে যান। তিনি যখন শোনেন ওই নারী পুলিশ কর্তৃক ধর্ষিত হয়েছেন, তখন তার সঙ্গে কথা বলা হয়। তাকে জানানো হয়, এ ধরনের পরীক্ষা পুলিশের মাধ্যমে না এলে করা যায় না। এরপর পুলিশকে জানানো হলে কোতয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান তাকে পুলিশ সুপারের কাছে নিয়ে যান।

যোগাযোগ করা হলে যশোরের পুলিশ সুপার মঈনুল হক বলেন, “অভিযোগটি খুবই গুরুতর। আমরা গুরুত্ব সহকারেই দেখছি। ঘটনার সবিস্তার জানতে আমাদের সিনিয়র লেভেলের কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। প্রাথমকি তদন্তে যা আসবে, আইন অনুযায়ী আমরা সে ব্যবস্থাই নেবো। পুলিশ বলে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।”

পুলিশ সুপার বলেন, “ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”

এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিকেলে জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আরিফ আহম্মেদ বলেন, “ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে ভিক্টিমের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর বিস্তারিত জানা যাবে।”

52
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail