• শুক্রবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৪৬ বিকেল

মেয়র খোকন: দুই বছরের মধ্যে গণপরিবহনে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে

  • প্রকাশিত ১০:০৪ রাত সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯
মেয়র সাঈদ খোকন
ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন। ফাইল ছবি। ফোকাস বাংলা

'এখন সময় এসেছে সক্ষমতা বাড়ানোর এবং সমন্বয়হীনতা দূর করানোর'

আগামী দুই বছরের মধ্যে গণপরিবহনে ইতিবাচক পরিবর্তন দৃশ্যমান হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের কাউন্সিল হলে ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশের (আইইবি) পুরকৌশল বিভাগ এবং নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরাম কর্তৃক আয়োজিত ‘গণপরিবহনের শৃঙ্খলা রক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতা এসব কথা বলেন তিনি।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, "প্রতিদিন শহরে বিভিন্ন দুর্ঘটনা ঘটছে, এটা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। এসব দুর্ঘটনায় অনেকে প্রাণ হারাচ্ছেন। কেউবা আহত হচ্ছেন। বর্তমান সরকার গণপরিবহন খাতের সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আমাকে প্রধান করে কমিটি গঠন করেছে। এ কমিটি নগরবাসীর কাছে দুই বছর সময় চেয়েছে। এ সময়ের মধ্যে রাজধানীর গণপরিবহন খাতের ইতিবাচক পরিবর্তন শুরু হবে।"

"ইতোমধ্যে গণপরিবহনের শৃঙ্খলা রক্ষায় ধানমন্ডি-নিউমার্কেট, এয়ারপোর্ট-গুলিস্তান এবং উত্তরা চক্রাকার বাস সার্ভিস চালু করা হয়েছে। এর মধ্যে কিছুটা সমস্যা দেখা দেয়ায় উত্তরা চক্রাকার বাস বন্ধ করা হয়েছে। নতুন করে পুরান ঢাকায় চক্রাকার বাস সার্ভিস চালু করা হবে। এভাবে ধারাবাহিকভাবে একটু একটু পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে দুই বছরে দৃশ্যমান পরিবর্তন আসবে", যোগ করেন তিনি।

সাঈদ খোকন আরও বলেন, "গত একদশকে নগরী যেভাবে প্রবৃদ্ধি ঘটেছে, সে অনুযায়ী নগরের সেবাদাতা সংস্থাগুলো প্রবৃদ্ধি ঘটাতে সক্ষম হয়নি। যার ফলে যখন পরিবহনে সমস্যা দেখা দেয়, তখন তা সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়। আবার যখন মশা বাহিত রোগ দেখা দেয় তখন তা নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খেতে হয়। তবে এখন সময় এসেছে সক্ষমতা বাড়ানোর এবং সমন্বয়হীনতা দূর করানোর।"

ট্রাফিকের ডিসি প্রবীর কুমার রায়, পরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. এস এম সালেহ উদ্দিন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান ও গণপরিবহন গবেষক প্রকৌশলী ড. আব্দুল আল মামুন বৈঠকে বক্তব্য রাখেন।