• মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪০ রাত

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের আন্তরিকতা চায় ঢাকা

  • প্রকাশিত ০৮:৩৫ রাত সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯
রোহিঙ্গা ক্যাম্প
টেকনাফের শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্প। সৈয়দ জাকির হোসেন/ঢাকা ট্রিবিউন

‘বাংলাদেশ চায় যে মিয়ানমার তাদের লোকদের যত দ্রুত সম্ভব নিয়ে যাক’

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে মিয়ানমারকে আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। সেইসাথে তিনি বলেছেন, বাস্তুচ্যুত এসব মানুষকে বাংলাদেশ জোর করে প্রত্যাবাসন বা স্থানান্তর করবে না।

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁও এলাকায় পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) আয়োজনে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-৩ বিষয়ে আয়োজিত সেমিনারে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

“মিয়ানমার সরকার আমাদের বলছে যে তারা প্রত্যাবাসনের জন্য প্রস্তুত আছে। এর নমুনা হিসেবে তারা আমাদের রাষ্ট্রদূতসহ কয়েকজন রাষ্ট্রদূতকে সংশ্লিষ্ট এলাকায় নিয়ে যাবে। এবিষয়ে তারা সম্প্রতি রাজি হয়েছে,” যোগ করেন তিনি।

রোহিঙ্গাদের আগে ফিরিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, যখন এসব বাস্তুচ্যুত মানুষের যাওয়া শুরু হবে তখন তারা গিয়ে ঘরবাড়ি তৈরি করবে।

বিবিসি’র প্রতিবেদন অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের জায়গা সরকার দখল করে নেওয়া প্রসঙ্গে ড. মোমেন জানান, তার এবিষয়ে জানা নেই। মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের থাকার জন্য নিশ্চয় কিছু ব্যবস্থা করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে বলে মিয়ানমার যে অভিযোগ করছে তার জবাবে তিনি বলেন, “রোহিঙ্গাদের যাওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশের শর্ত আছে আর তা হলো এটি স্বেচ্ছায় হতে হবে। এক্ষেত্রে কাউকে জোর করে পাঠানো হবে না।”

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার জন্য বোঝানোর দায়িত্ব মিয়ানমারের উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে দেশটি ব্যর্থ হয়েছে।

“বাংলাদেশ চায় যে মিয়ানমার তাদের লোকদের যত দ্রুত সম্ভব নিয়ে যাক,” বলেন ড. মোমেন।

নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের চিন্তা করা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা সাময়িক ব্যবস্থা, কোনো সমাধান নয়। কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের বসতি ঘন হওয়ায় ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রাণহানির আশঙ্কা থাকায় তাদের জন্য ভাসানচরে সাময়িক ব্যবস্থার চিন্তা করা হয়েছে। কিন্তু মূল সমাধান হলো মিয়ানমারের লোকদের মিয়ানমারে ফিরে যেতে হবে।