• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৭ রাত

সুরমা নদীর পরিচ্ছন্নতায় তিন ব্রিটিশ এমপি

  • প্রকাশিত ০৬:৩০ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
সুরমা পরিচ্ছন্ন
সোমবার সিলেটের সুরমা নদীতে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের সদস্যরা ঢাকা ট্রিবিউন

`এ কার্যক্রমে বৃটিশ এমপিদের সরাসরি অংশগ্রহণ একটি নতুন মাইলফলক'

সিলেট শহরের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া সুরমা নদীর দুই তীরে ফেলা ময়লা-আবর্জনায় দূষণের পাশাপাশি নাব্য সংকটে পড়ছে নদীটি। এ অবস্থার পরিত্রাণের উদ্দেশ্যে নদী তীরের আবর্জনা পরিষ্কার অভিযান কর্মসূচির পরিচালনায় ‘ক্লিন সুরমা গ্রীন সিলেট’নামে দীর্ঘমেয়াদী একটি প্রকল্প গত ২১ জুন উদ্বোধন করেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এ কর্মসূচিতে যোগ দেন বাংলাদেশে সফররত তিন ব্রিটিশ এমপি’র নেতৃত্বাধীন সফররত ২২ সদস্যের ‘কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ’-এর একটি প্রতিনিধি দল। ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টি এবং সেখানে বসবাসরত বাংলাদেশি প্রবাসীদের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করে এই সংগঠন। 

এই তিন ব্রিটিশ এমপি হচ্ছেন- কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ এর প্রেসিডেন্ট অ্যান মেইন, ভাইস প্রেসিডেন্ট পাউল স্কলি এবং বব ব্ল্যাক মেন। প্রায় দুই ঘণ্টার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে নগরীর ক্বিন সেতুর দক্ষিণ প্রান্তের একাংশ পরিষ্কার করা হয়। 

এসময় ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টি'র তিন এমপি বলেন, “সিলেটের সঙ্গে ব্রিটেনের রয়েছে ঐতিহ্যবাহী সম্পর্ক। এখানকার তরুণরা যেভাবে পরিবেশ রক্ষায় এগিয়ে এসেছে, তা দৃষ্টান্তমূলক।তাদের সঙ্গে পরিবেশ রক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিয়ে আমরা গর্বিত।”

এ প্রকল্পের সাফল্য কামনা করেতারা জানান, প্রয়োজনে ব্রিটেন ‘ক্লিন সুরমা গ্রীন সিলেট’প্রকল্পে সহায়তা করতে আগ্রহী। 

ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন‘কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ’-এর চেয়ারম্যান মেহফুজ চৌধুরী জানান, ব্রিটিশ এমপিদের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দলটি গত ১৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে এসেছে। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর তারা ফিরে যাবেন। 

সফরকালে তারা সিলেট, কক্সবাজার ও ঢাকায় বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন করবেন। তিনি জানান, এবার তাদের প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘শাপলা’। 

সোমবারের এ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে অংশ নেন বাংলাদেশ স্কাউটস রেলওয়ে ডিস্ট্রিক্ট,  ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশ, সাইকেল ট্রাভেলার্স অব সিলেট, সোশ্যাল ওয়ার্কার্স অব সিলেট, রুরাল টু আরবান, অণুবীক্ষণসহ বেশ কয়েকটি সামাজিক সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকেরা। 

‘ক্লিন সুরমা গ্রীন সিলেট’- প্রজেক্ট সংশ্লিষ্টরা জানান, শুরু থেকেই সিলেট সিটি কর্পোরেশন তাদের সবধরনের সহায়তা দিয়ে আসছে। এ কার্যক্রমে বৃটিশ এমপিদের সরাসরি অংশগ্রহণ একটি নতুন মাইলফলক।