• বুধবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৪৪ রাত

রাঙামাটিতে বিভিন্ন ক্লাবে অভিযান, আওয়ামী লীগ নেতাসহ ১২ জনকে জরিমানা

  • প্রকাশিত ০৮:৪৮ রাত সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯
ক্লাব
রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন ক্লাবে শুক্রবার রাতে অভিযান পরিচালনা করে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

ক্লাবে থাকা কেউ কেউ পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে কাপ্তাই লেকের পানিতে ঝাঁপ দেন।

রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন ক্লাবে অভিযান পরিচালনা করেছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন। অভিযানে ১২ জনকে জরিমানা করা হয়েছে। 

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে জেলা প্রশাসনের তিনজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশ ও গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) এ অভিযানে অংশ নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ক্লাবগুলোতে থাকা জুয়াড়ী ও নেশাগ্রস্থ ব্যক্তিরা পালানোর চেষ্টা করেন। ক্লাবে থাকা কেউ কেউ পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে কাপ্তাই লেকের পানিতে ঝাঁপ দেন। অনেকেই দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। 

অভিযানে রাঙামাটি শহরের ব্রাদার্স স্পোর্টিং ক্লাব থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জমির উদ্দিনসহ ১১ জন ও রাইজিং ক্লাব থেকে একজনসহ মোট ১২ জনকে জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এছাড়া সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের দেশি-বিদেশি মদ ও জুয়া খেলার সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

অভিযানে ব্রাদার্স ক্লাবে অর্থদণ্ডে দণ্ডিতরা হলেন-সুদত্ত চাকমা, রাখাল দাশ, সেকান্দর আলী, চন্দন দে, জমির উদ্দিন, মনিময় দেওয়ান, রাজেশ চাকমা, পূরনজয় চাকমা, সূর্যদেব চাকমা, জুনু চাকমা ও পিংকু চাকমা। অন্যদিকে রাইজিং স্টার ক্লাবে প্রভাকর বড়ুয়া নামের একজনকে জরিমানা করা হয়।

এদিকে প্রশাসনের ক্লাবে অভিযানের খবর ছড়িয়ে পড়লে শহরের অন্যান্য ক্লাবগুলো জনশূণ্য হয়ে যায়।

অভিযান প্রসঙ্গে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পল্লব হোম দাশ বলেন, জুয়া ও মাদকের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত থাকবে। প্রকাশ্যে জুয়া আইন ১৮৬৭’র ৪ ধারায় ১২ জনকে জরিমানা করা হয়েছে।