• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:২৫ বিকেল

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

  • প্রকাশিত ০৯:৪১ সকাল সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
বন্দুকযুদ্ধ
প্রতীকী ছবি

শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) গভীররাতে টেকনাফের হ্নীলা লেদা ২৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকের রাস্তায় এঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি, নিহত রোহিঙ্গা দম্পতি ক্যাম্পের চিহ্নিত ডাকাত ও সন্ত্রাসী ছিল

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত হয়েছেন। নিহত রোহিঙ্গারা হলেন, টেকনাফের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকের ২২ নম্বর রুমের মৃত কাদের হোসেনের ছেলে দিল মোহাম্মদ (৩২) ও তার স্ত্রী জাহেদা বেগম (২৭)।

শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) গভীররাতে টেকনাফের হ্নীলা লেদা ২৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকের রাস্তায় এঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে দুইটি এলজি, একটি থ্রি-কোয়ার্টার, ৮ রাউন্ড কার্তুজ ও ১২ রাউন্ড কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের দাবি, নিহত রোহিঙ্গা দম্পতি ক্যাম্পের চিহ্নিত ডাকাত ও সন্ত্রাসী ছিল। এঘটনায় টেকনাফ থানা পুলিশের এসআই নিজাম, কনস্টেবল শাহাদত ও সুদর্শন আহত হয়েছেন।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন, শনিবার রাতে লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি ব্লকে যৌথ বাহিনীর অভিযান চালিয়ে একটি অস্ত্রসহ স্বামী ও স্ত্রীকে আটক করা হয়। পরে তাদের স্বীকারোক্তিতে ওই ক্যাম্পের সি ব্লকে বাড়ির পাশে লুকানো থ্রি-কোয়ার্টার ও কার্তুজ উদ্ধারে পুলিশ অভিযানে গেলে, টের পেয়ে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে। এতে আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। 

বেশ কিছুক্ষণ গুলিবিনিময়ের পর সন্ত্রাসীরা গুলি করতে করতে পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলিসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওই রোহিঙ্গা দম্পতিকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কর্তব্যরত চিকিৎসক কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

পরে নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়। এব্যাপারে টেকনাফ থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে।