• সোমবার, অক্টোবর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:১৮ দুপুর

গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থদিনের মত অনশনে শিক্ষার্থীরা

  • প্রকাশিত ০২:০৮ দুপুর সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
গোপালগঞ্জ
উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। ঢাকা ট্রিবিউন

গত ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আমরণ অনশনে বসেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দাবি না মানা পর্যন্ত এই কর্মসূচি থেকে পিছু না হটার ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অনশন কর্মসূচি চতুর্থদিনে গড়িয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) থেকে উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর খন্দকার মোহাম্মদ নাসিরুদ্দিনের পদত্যাগ দাবি করে আমরণ অনশনে বসেন আন্দোলনকারীরা। তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত এই কর্মসূচি থেকে পিছু না হটার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।


আরও পড়ুন: গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, উত্তাল বিশ্ববিদ্যালয়


বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. নূরউদ্দিন আহমেদ জানান, “বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে আমরা অনশনরত শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসবো। তাদের অনশন কর্মসূচি প্রত্যাহারের অনুরোধ জানানো হবে।”

এর আগে, শনিবার ভিসির পদত্যাগের দাবিতে চলা আন্দোলনের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ৩ অক্টোবর পর্যন্ত ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করে। এর জেরে ভিসি সমর্থকের হামলায় অন্তত ২০শিক্ষার্থী আহত হন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে গোবরা, সোনাকুড়, নবীনবাগ এলাকায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। 


আরও পড়ুন: গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা, হল ত্যাগের নির্দেশ


উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও দ্য ডেইলি সানের ক্যাম্পাস প্রতিনিধি ফাতেমা-তুজ-জিনিয়িাকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অন্যায়ভাবে সাময়িক বহিষ্কার করে। পরে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের তীব্র আন্দোলনের মুখে জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এরপরেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে।