• রবিবার, জুলাই ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:২৩ সন্ধ্যা

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হচ্ছে চীন

  • প্রকাশিত ০৬:৩০ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৯
রোহিঙ্গা ক্যাম্প
টেকনাফের শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্প। ফাইল ছবি/সৈয়দ জাকির হোসেন/ঢাকা ট্রিবিউন

কিছু আপত্তি থাকা সত্ত্বেও চীনের প্রস্তাবে রাজি হয়েছে মিয়ানমার

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রকৃত পরিস্থিতি মূল্যায়নের জন্য একটি ‘ত্রিপক্ষীয় যৌথ কার্যনির্বাহী ব্যবস্থা’ গঠনে সম্মত হয়েছে বাংলাদেশ, চীন ও মিয়ানমার।

স্থানীয় সময় সোমবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সম্মেলনে চীন ও মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে একটি যৌথ বৈঠকের পর এ কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

সাংবাদিকদের তিনি জানান, বাংলাদেশ, চীন এবং মিয়ানমার যৌথভাবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন পরিস্থিতির মূল্যায়ন করবে। কিছু আপত্তি থাকা সত্ত্বেও চীনের প্রস্তাবে রাজি হয়েছে মিয়ানমার। অক্টোবরে ত্রিপক্ষীয় কার্যনির্বাহী সংস্থার প্রথম বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

যদিও মিয়ানমার দাবি করেছে যে তারা তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নিয়েছে, তবে বাংলাদেশ জানিয়েছে, মিয়ানমার এখনও রোহিঙ্গাদের মাঝে আস্থা ও বিশ্বাস আনতে পারেনি। তারা নিজ দেশে তখনই ফিরে যাবে, যখন তারা মনে করবে মিয়ানমারে ফেরার পর তারা নিরাপদে থাকবে ও স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারবে।

ড. মোমেন বলেন, তবে একটি সুসংবাদ হচ্ছে মিয়ানমার যত দ্রুত সম্ভব তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে রাজি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশ বর্তমানে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে, যাদের বেশিরভাগ কক্সবাজার দিয়ে এসেছে। রাখাইনে রাজ্যে উপযুক্ত পরিবেশ না থাকার কারণে রোহিঙ্গারা তাদের জন্মভূমিতে ফিরে যেতে রাজি হয়নি। এজন্য রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের দুদফা প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে চীনের সম্পৃক্ততা ‘অনেক বেশি কার্যকর’ ভূমিকা রাখবে উল্লেখ করে সম্প্রতি বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্যাপক সম্পৃক্ততা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, “আমরা দেখেছি মিয়ানমারে চীনের অনেক বেশি সম্পৃক্ততা রয়েছে। যা খুব ভালো একটা ব্যাপার।”

হাইকমিশনার বলেন, “আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গারা যাতে তাদের জন্মভূমি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নিরাপদে, স্বেচ্ছায় এবং মর্যাদাপূর্ণভাবে ফিরে যেতে পারে তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে।”

বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সম্প্রতি বলেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সমাধান ও মধ্যস্থতার জন্য ‘সক্রিয়ভাবে’ কাজ করতে চীনারা তৈরি আছে।

‘চীনারা যেমন বলেন, প্রতিবেশীরা হলো পরিবারের সদস্যদের মতো যারা একে অপরের পাশে দাঁড়ায়। যদি প্রয়োজন হয় দুই প্রতিবেশী এবং বন্ধুদের সহায়তার ক্ষেত্রে চীনারা পিছিয়ে থাকবে না,’ উল্লেখ করেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত জিমিং সম্প্রতি কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবিরগুলো পরিদর্শন করেছেন যা এই অঞ্চলে শান্তি, স্থিতিশীলতা, উন্নতি ও সমৃদ্ধি বাড়ানোর ক্ষেত্রে চীনাদের ‘দৃঢ় সংকল্প’র প্রতিফলন বলে মনে করছেন।

রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে এটা বিশ্বাস করেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, ‘তিনি বিশ্বাস করেন তারা ফেরত যাবেন। রাখাইন রাজ্যে অনুকূল পরিবেশ থাকলে রোহিঙ্গারা শেষ পর্যন্ত তাদের বাড়িতে ফিরে যেতে চায়।’

ব্রিটিশ কূটনীতিক রাখাইন রাজ্যে ফিরে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরির ওপর জোর দিতে বলেন, যাতে রোহিঙ্গারা নিরাপদে ফিরে যেতে পারে।

মিয়ানমারের ওপর ‘বিশ্বব্যাপী ব্যাপক অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা’ আরোপের জন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের (ইউএনএসসি) প্রতি ফের আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় সংসদ (ইপি)।

এছাড়াও তারা মিয়ানমারকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ অস্ত্র সরবরাহ, সকল ধরনের অস্ত্র বিক্রয় বা স্থানান্তর, যুদ্ধোপকরণ, অন্যান্য সামরিক ও নিরাপত্তা সরঞ্জামাদি স্থানান্তর, পাশাপাশি প্রশিক্ষণ বা অন্যান্য সামরিক বা নিরাপত্তা সহায়তা বাতিল করার আহ্বান জানিয়েছে।

ইউরোপীয় সংসদ এর সর্বশেষ প্রস্তাবে আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় গুরুতর অপরাধের জন্য দায়ী বলে মনে করা হয়েছে মিয়ানমারের এমন ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ও সম্পদ জব্দ করার মতো ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ইউএনএসসি’র প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

50
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail