• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ-এর সঙ্গে গোলাগুলিতে সেনাসদস্য আহত

  • প্রকাশিত ০৯:০৮ রাত সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯
খাগড়াছড়ি গোলাগুলি
বুধবার খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ সদস্যদের সঙ্গে গোলাগুলিতে আহত সেনা সদস্য সংগৃহীত

সেনাবাহিনীর টহল দল ইউপিডিএফ-এর একটি সশস্ত্র দলের মুখোমুখি হলে এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে

খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে সেনাবাহিনীর সঙ্গে আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ প্রসীত) গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে লক্ষ্মীছড়ি সেনা জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর মো. আনিসুর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মানিকছড়ির বড়ডলু এলাকায় সেনাবাহিনীর টহল দল ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের সশস্ত্র দলের মুখোমুখি হলে এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে এসএমজিসহ ইউপিডিএফ-এর এক সশস্ত্র কর্মীকে আটকের কথা জানিয়েছে সেনাবাহিনী।    

নিরাপত্তা বাহিনী সূত্র জানায়, ইউপিডিএফ সদস্যরা টহল দলের ওপর অতর্কিত হামলা শুরু করলে সেনাবাহিনীও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। প্রায় দেড় ঘণ্টা গোলাগুলি চলে। সন্ধ্যা ৭ টার দিকে সেনাবাহিনীর লক্ষ্মীছড়ি জোনের আরেকটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর তল্লাশি শুরু করলে একটি এসএমজিসহ ইউপিডিএফ-এর এক সশস্ত্র সদস্যকে আটক করা হয়। 

সূত্র আরও জানায়, তাৎক্ষণিকভাবে আটক ব্যক্তির পরিচয় জানা না গেলেও তিনি ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের সদস্য বলে দাবি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে একটি এসএমজি, ২৬ রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। আহত সেনা কর্মকর্তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম সামরিক সম্মিলিত হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের খাগড়াছড়ি জেলার সংগঠক অংগ্য মারমা জানান, সেনাবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলির ঘটনায় ইউপিডিএফ’র কোনো সম্পৃক্ততা নেই। যে এলাকায় গোলাগুলির হয়েছে বলা দাবি করা হচ্ছে, সেখানে ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের কোনো কার্যক্রম নেই। 

মানিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন জানান, সেনাবাহিনীর সঙ্গে ইউপিডিএফ’র গোলাগুলিতে এক সেনা কর্মকর্তা আহত হওয়ার খবর শুনেছি। পুলিশ এখনও ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে পারেনি।