• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫৫ সকাল

হিলি বন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আসা শুরু

  • প্রকাশিত ০৩:৫৬ বিকেল অক্টোবর ৪, ২০১৯
পেঁয়াজ
ফাইল ছবি। মেহেদী হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

গত ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত

রপ্তানি জটিলতায় চার দিন ধরে আটকে থাকার পরে পুরোনো এলসিগুলোর বিপরীতে ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেওয়ায় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। 

শুক্রবার (৪ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ভারত থেকে পেঁয়াজবাহী ট্রাক দেশে প্রবেশের মধ্য দিয়ে বন্দর দিয়ে আবারও পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়। 

হিলি স্থলবন্দর আমদানি রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ হারুন ও সহ-সভাপতি শাহিনুর রেজা শাহীন জানান, ভারতের অভ্যান্তরীণ বাজারে পেয়াজের সংকট ও দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় গত রোববার বিকেল থেকে বাংলাদেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশে পেঁয়াজ রপ্তানি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেয় ভারত সরকার। এতে ভারত অভ্যন্তরে ৬৫ থেকে ৭০টি ট্রাকে দেড় হাজার টনের মতো পেঁয়াজ আটকা পড়ে। 

তারা বলেন, "পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ার পর থেকেই পুরনো এলসিগুলোর বিপরীতে পেয়াজ রপ্তানি করতে আমরা ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করে এসেছিলাম। সেই সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুরোধের আলোকে গত মঙ্গলবার ভারতের দিল্লিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু তা ফলপ্রসু না হওয়ায় সেদিন বন্দর দিয়ে কোনো পেঁয়াজ রপ্তানি করেনি ভারত।" 

"পরে গত বুধবার বানিজ্য মন্ত্রণালয়ে আবারও বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেই বৈঠক ফলপ্রসু হওয়ায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হওয়া পুরোনো এলসিগুলোর বিপরীতে ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেয়। কিন্তু কাস্টমসে সেই অনুমতির কপি না আসায় বৃহস্পতিবারও কোনো পেঁয়াজ রপ্তানি হয়নি। পরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে সেই আদেশের কপি কাস্টমসে আসলেও সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় কোনো পেঁয়াজ দেশে প্রবেশ করেনি। আটকে থাকা পেয়াজগুলো রপ্তানির জন্য শুক্রবার ছুটির দিনেও বন্দর খোলা রাখার ভারতীয় ব্যবসায়ীদের অনুরোধে আজ বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম খোলা রাখা হয়।" 

ব্যবসায়ীরা জানান, পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় পেঁয়াজের দাম হিলি স্থলবন্দরেই ৮০ থেকে ৮৫ টাকায় উঠে গিয়েছিল। কোনো স্থানে ১০০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছিলো। গত কয়েকদিনের ব্যবধানে তা কমে ৫০ থেকে ৬০ টাকায় নেমে এসেছে। নতুন এই পেঁয়াজ দেশের বাজারে ঢোকার ফলে পেঁয়াজের দাম আরও কমতে পারে বলে তারা জানিয়েছেন।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন জানান, দেশের আমদানিকারকদের পূর্বের এলসি করা পেঁয়াজগুলো দেশে প্রবেশের জন্য ভারত অভ্যান্তরে পাইপলাইনে ছিল। ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানির সিন্ধান্ত বদল করায় হিলি পার্কিংয়ে ৭০ ট্রাকের মতো পেঁয়াজ আটকা পড়েছিল। আজকে দুই দেশের সিন্ধান্ত মোতাবেক এই পেঁয়াজগুলো ভারত সরকার দেওয়া শুরু করেছে।