• শনিবার, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৪ সকাল

মোবাইলে 'প্রেম', দেখা করতে গিয়ে অপহৃত তরুণ

  • প্রকাশিত ০৮:৪০ রাত অক্টোবর ৫, ২০১৯
গ্রেফতার
অপহরণের অভিযোগে শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার চৌধুরীবাড়ি এলাকা থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঢাকা ট্রিবিউন

এক তরুণীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে পরিচয় হয় আরিফের 

পটুয়াখালী থেকে নারায়ণগঞ্জে 'প্রেমিকার' সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে অপহরণের শিকার হয়েছেন মো. আরিফ (২২) নামে এক তরুণ। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  

শুক্রবার (৪ অক্টোবর) রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার চৌধুরীবাড়ির আর কে গার্মেন্টস সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

পরে ভুক্তভোগী আরিফের খালা থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে এবং তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। 

পরে রাতেই আরিফ বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তিনি পটুয়াখালী সদর উপজেলার মরিচবুনিয়া গ্রামের নুরুল ইসলাম পেয়াদার ছেলে।

গ্রেফতার তিনজন হলেন-সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল রসূলবাগ এলাকার মৃত শুকুর আলীর ছেলে সেলিম রেজা (৩২), বন্দরের বাদল মিয়ার ছেলে জনি (১৯) ও সিদ্ধিরগঞ্জের এনায়েতনগর এলাকার মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. ফারুক (৪২)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, এক তরুণীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে পরিচয় হয় আরিফের। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ওই তরুণী সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের একটি গার্মেন্টেসে চাকরি করেন। আরিফকেও গার্মেন্টসে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি। 

পরে ৩ অক্টোবর পটুয়াখালীর নিজ গ্রাম থেকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে রওয়ানা দেন আরিফ। ৪ অক্টোবর বিকেল ৫টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের চৌধুরীবাড়ির আরকে গার্মেন্টসের পশ্চিম পাশে পার্টনার হোসিয়ারি নামের একটি দোকানের সামনে ওই তরুণীর সঙ্গে দেখা করেন তিনি। এ সময় গ্রেফতার সেলিম, জনি ও ফারুক তরুণীকে তাড়িয়ে দিয়ে আরিফকে দোকানের ভেতর আটকে রাখেন। পরে আরিফের মোবাইল দিয়ে তার খালার কাছে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। এরপর আরিফের খালা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। 

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুখ জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। মামলার তিন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ দুপুরে তাদের আদালতে পাঠানো হয়।