• বুধবার, অক্টোবর ২৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৭ রাত

আইয়ুব বাচ্চুর হ্যাট ও গিটারের আদলে পুজোমণ্ডপ

  • প্রকাশিত ১২:৪৩ দুপুর অক্টোবর ৬, ২০১৯
পূজা
রাজশাহী নগরীর রানীবাজারে আইয়ুব বাচ্চুর স্বরণেই তার হ্যাট ও গিটারের আদলে পুজোমণ্ডপ তৈরি করা হয়েছে। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

ভিন্নধর্মী এ মণ্ডপটি দেখতে আসা দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় চোখে পড়ার মতো

শারদীয় দুর্গোৎসবকে কেন্দ্র করে রাজশাহী নগরী সেজেছে ভিন্নরূপে। তবে নগরীর রানীবাজার এলাকায় দেখা গেছে একটু ব্যতিক্রমী এক পূজামণ্ডপ। ব্যান্ড সঙ্গীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু’র গিটার ও হ্যাটের আদলে  সাজানো হয়েছে মণ্ডপটি। ৫৪ ফিট দৈর্ঘ্য এবং ১৯ ফিট প্রস্থের গিটারের পাশে ১০ ফিট উচ্চতার হ্যাট বিশিষ্ট ভিন্নধর্মী মণ্ডপটি দেখতে ভিড় জমিয়েছে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। বিশেষ করে সন্ধ্যার পর থেকে মণ্ডপ দেখতে আসা দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় চোখে পড়ার মতো।

রাজশাহীতে পূজা আয়োজনকারী সংগঠন ‘টাইগার সংঘ’ ৩৮ বছর ধরে নগরীর রানীবাজার এলাকার পূজা আয়োজন করে আসছে। ২০১৬ সালে ক্রিকেটে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অবদানকে স্মরণ করে বাঘের মুখের আদলে মণ্ডপটি সাজায় তারা। ২০১৭ সালে ভারতীয় ‘বাহুবলী’ সিনেমার পোস্টারের আদলে সাজানো হয়েছিল। আর গতবার ২০১৮ সালে সাজানো হয়েছিল বাংলাদেশের সব থেকে বড় অর্জন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর আদলে। আর এবার আইয়ুব বাচ্চুর স্মরণে তার হ্যাট ও গিটারের আদলে পুজোমণ্ডপ তৈরি করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে টাইগার সংঘের সাধারণ সম্পাদক পার্থ পাল চৌধুরী বলেন, “প্রতিবারের মত এবারও ভিন্ন কিছু বিষয় মাথায় রেখে এই মণ্ডপের কাজ করা হয়েছে।” এটি তৈরিতে প্রায় ৫ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে বলেও তিনি জানান।

রাজশাহী কলেজের শিক্ষার্থী অনিমা বলেন, “নগরীতে বিভিন্ন পূজামণ্ডপ ঘুরে দেখেছি। তবে এবার টাইগার সংঘের মণ্ডপটি দেশের ব্যান্ড সঙ্গীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুকে স্মরণ করে তৈরি করেছে। নিঃসন্দেহে এটি ভালো উদ্যোগ। তিনি রাজশাহীর মাটিতে এসে অনেকবার এসেছিলেন। সেই সাথে রাজশাহীর সঙ্গীতপ্রেমীদের মাতিয়ে গেছেন। তাই তাকে স্মরণ করায় ভালো লাগছে।”

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (৪ অক্টোবর) থেকে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। 

হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের রাজশাহী মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ জানান, “এবার নগরীতে ৯৯টি এবং রাজশাহী জেলার আট উপজেলায় ৩৫০টি ম-পে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নিরাপত্তার জন্য শুক্রবার সকাল থেকেই বিভিন্ন ম-পে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা রয়েছে। এতে করে এবারও আমরা খুব ভালভাবেই আমাদের উৎসব পালন করতে পারছি। কোন সমস্যা হচ্ছে না।”