• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

বুয়েটে ভর্তি ও অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা আন্দোলনকারীদের

  • প্রকাশিত ০২:১২ দুপুর অক্টোবর ৮, ২০১৯
আবরার হত্যা
আবরারের হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়ে মঙ্গলবার সাত দফা দাবিতে বিক্ষোভ করেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা। মেহেদি হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান নেন পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী 

অনির্দিষ্টকালের জন্য বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তি ও অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করেছেন আন্দোলনকারীরা।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) সকাল ১০টা থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান নেন পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী। আবরার ফাহাদের হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ আট দফা দাবির কথা জানান তারা। 

আট দফা দাবিগুলো হলো-হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নিশ্চিতভাবে শনাক্ত ও খুনীদের ছাত্রত্ব আজীবনের মতো বাতিল, দায়ের করা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালের অধীনে স্বল্পতম সময়ে নিষ্পত্তি, ঘটনার ৩০ ঘণ্টার মধ্যেও ঘটনাস্থলে ভিসি কেন উপস্থিত হননি তার জবাবদিহিতা,  আবাসিক হলগুলোতে র‍্যাগের নামে ও ভিন্ন মতাবলম্বীদের ওপর সব ধরনের শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন বন্ধে জড়িত সবার ছাত্রত্ব বাতিল, একই সঙ্গে আহসানউল্লা হল এবং সোহরাওয়ার্দী হলের পূর্বের ঘটনাগুলোতে জড়িত সবার ছাত্রত্ব বাতিল, রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে আবাসিক হল থেকে ছাত্র উৎখাতের ব্যাপারে অজ্ঞ থাকা ও শেরে বাংলা হলের প্রভোস্টকে ১১ নভেম্বরের মধ্যে প্রত্যাহার, আবরারের পরিবারের ক্ষতিপূরণ ও সব মামলার খরচ বুয়েট প্রশাসনকে বহন করতে হবে এবং এবং ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করতে হবে।

রোববার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে আবরারের মরদেহ উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরে সোমবার ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এছাড়া আবরার ফাহাদকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগ থেকে ১১ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।