• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৩ বিকেল

আবরারের গ্রামের বাড়িতে তোপের মুখে বুয়েট ভিসি

  • প্রকাশিত ০৬:০৮ সন্ধ্যা অক্টোবর ৯, ২০১৯
আবরার বাড়ি কুষ্টিয়া
নিহত বুয়েট ছাত্র আবরারের গ্রামের বাড়ির সামনে বুধবার স্থানীয়দের বিক্ষোভ আল-মামুন সাগর/ঢাকা ট্রিবিউন

আবরার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পদত্যাগ করবেন কি না, কুষ্টিয়ার সংবাদকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে পদত্যাগ করবেন না বলে জানান সাইফুল ইসলাম

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্যাতনের শিকার হয়ে নিহত আবরার ফাহাদের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে স্থানীয় জনতার তোপের মুখে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

বুধবার (৯ অক্টোবর) ৪টা ৩৭ মিনিটে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার রায়ডাঙ্গা গ্রামে পৌঁছেন উপাচার্য।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গ্রামে পৌঁছে প্রথমে আবরারের কবর জিয়ারত করেন ভিসি। জিয়ারত শেষে নিহত ছাত্রের স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। ভিসির আসার কথা শুনে আগে থেকেই আবরারের বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ করছিলেন তার স্বজনরাসহ শত শত স্থানীয় জনতা। এরইমধ্যে সেখানে পৌঁছেন ভিসি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন ও পুলিশ সুপার এস.এম তানভীন আরাফাত।


আরও পড়ুন- বুয়েটে শিক্ষক রাজনীতি নিষিদ্ধের ঘোষণা


আবরারের স্বজনদের অভিযোগ, বিক্ষোভরতদের পক্ষ থেকে আবরারের এক আত্মীয় ভিসির সঙ্গে কথা বলতে চাইলে পুলিশ তাকে বাধা দেয়। এতে ভিসির গাড়ির সামনেই শুয়ে পড়েন তিনি। এতে বিক্ষুব্ধ জনতার রোষ আরও বাড়ে। পরিস্থিতি খারাপ দেখে আবরারের বাড়িতে না গিয়ে পুলিশের সহায়তায় দ্রুত স্থান ত্যাগ করে চলে যান ভিসি।

এদিকে, আবরার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পদত্যাগ করবেন কি না, কুষ্টিয়ার সংবাদকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে পদত্যাগ করবেন না বলে জানান সাইফুল ইসলাম।


আরও পড়ুন- আবরার হত্যা: শেরে বাংলা হল প্রভোস্টের পদত্যাগ


উল্লেখ্য, আবরারকে পিটিয়ে হত্যার ৩৬ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার বিকেলে বুয়েট ক্যাম্পাসে গিয়েও আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েছিলেন উপাচার্য।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে আবরারের মরদেহ উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সোমবার ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ। আসামিদের মধ্যে ১৪ জনকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করেছে পুলিশ।