• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:১৮ দুপুর

গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের পদত্যাগ

  • প্রকাশিত ০৫:৩৯ সন্ধ্যা অক্টোবর ১০, ২০১৯
গোপালগঞ্জ
পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আশিকুজ্জামান ভুঁইয়া। ঢাকা ট্রিবিউন

‘আমি শারীরিকভাবে প্রচণ্ড অসুস্থ। এই অবস্থায় প্রক্টরের দায়িত্ব আমার পক্ষে পালন করা সম্ভব নয়’

শারীরিক অসুস্থতা দেখিয়ে পদত্যাগ করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) প্রক্টর আশিকুজ্জামান ভুঁইয়া।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. নুরুদ্দীন আহমেদের কাছে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেন।

প্রক্টরের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করে ড. নুরুদ্দীন আহমেদ বলেন, “বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় প্রক্টর মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান ভূঁইয়ার পদত্যাগপত্রটি আমি পেয়েছি। এটি গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পরবর্তী সভায় এব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।”

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, “প্রক্টর সাবেক ভিসিপন্থী ছিলেন। তিনি ভিসির দুর্নীতি, শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার ও নানারকম নির্যাতনের ক্ষেত্রে ব্যাপক ভূমিকা পালন করেছেন। এখন পদত্যাগ করে নিজেকে শেষরক্ষা করতে চাইছেন। তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।”

এবিষয়ে প্রক্টর ও ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, “আমি শারীরিকভাবে প্রচণ্ড অসুস্থ। এই অবস্থায় প্রক্টরের দায়িত্ব আমার পক্ষে পালন করা সম্ভব নয়। তাই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছি।” তবে দুর্নীতি, শিক্ষার্থী বহিষ্কার ও নির্যাতনের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান বলেন, “পদত্যাগপত্রটি আমরা গ্রহণ করেছি। বিষয়টি বিবেচনা করে এব্যাপারে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো।”

উল্লেখ্য, গত ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে বশেমুরবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীরা সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। ওইদিন থেকেই শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত ছিলেন আশিকুজ্জামান ভুঁইয়া।

এর আগে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর ছাত্র আন্দোলনের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটির সুপারিশের পর পদত্যাগ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক খোন্দকার নাসিরউদ্দিন।

প্রসঙ্গত, গত ১১ সেপ্টেম্বর আইন বিভাগের দ্বিতীয়বর্ষের ছাত্রী ও ক্যাম্পাস সাংবাদিক ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। পরে জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ তুলে নেওয়াসহ আরও কয়েকটি দাবি কর্তৃপক্ষ মেনে নিলেও ভিসির পদত্যাগের দাবিতে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া অন্দোলন অব্যাহত রাখেন শিক্ষার্থীরা। অন্দোলনের মধ্যে ২১ সেপ্টেম্বর বেলা ১২টার দিকে ক্যাম্পাসের বাইরে বেশ কয়েকটি জায়গায় শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে এদিন বশেমুরবিপ্রবি বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।