• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০১ রাত

হলগুলোতে আবাসন ব্যবস্থা নিয়ে কঠোর হচ্ছে ঢাবি প্রশাসন

  • প্রকাশিত ০৬:৩০ সন্ধ্যা অক্টোবর ১০, ২০১৯
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ফাইল ছবি/ঢাকা ট্রিবিউন।

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর নড়েচড়ে বসেছে ঢাবি প্রশাসন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে শিক্ষার্থীদের আবাসন ব্যবস্থা নিয়ে কঠোর হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় এই বিষয়ে একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে ইউএনবি জানিয়েছে।

সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে রয়েছে - মাস্টার্স শেষ হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়তে হবে। হল প্রশাসন ১ম বর্ষে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের মেধার ভিত্তিতে শূন্য আসনে সিট বরাদ্দ করবে এবং কোনো শিক্ষার্থী হল প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া হলে উঠতে ও অবস্থান করতে পারবে না। কেউ এর ব্যত্যয় ঘটালে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে মাদকের আগ্রাসন রুখতে ক্যাম্পাসে বা হলগুলোতে কোনো মাদকসেবী, মাদককারবারী, মাদকাসক্ত কিংবা সন্ত্রাসীর অবস্থানের সুনির্দিষ্ট তথ্য জানা থাকলে, তা অনতিবিলম্বে সংশ্লিষ্ট হলের প্রভোস্ট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে অবহিত করতে শিক্ষার্থীদের এবং সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এর পাশাপাশি আবাসিক হলগুলোর যেসব কক্ষে (গণরুম) অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থী অবস্থান করে, সেখানে ‘বাংক বেড’ স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বুয়েটের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এছাড়াও শিক্ষার্থীদের অধ্যয়নের সুবিধার্থে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সময়সীমা ইতোমধ্যে রাত ৯টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রয়োজনে আরও বৃদ্ধি এবং বিভাগীয় সেমিনার লাইব্রেরির সময়সীমা বৃদ্ধির বিষয়টিও বিবেচনাধীন রয়েছে।

সভায় আবরার হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন এবং এতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) হলে শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্তগুলো নেওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।