• রবিবার, এপ্রিল ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:১০ বিকেল

আবরার হত্যা: এজাহারভুক্ত আরেক আসামি মাজেদুল গ্রেফতার

  • প্রকাশিত ১১:২৫ সকাল অক্টোবর ১১, ২০১৯
বুয়েট আবরার ফাহাদ
নিহত বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ। ফাইল ছবি: সংগৃহীত

শুক্রবার ভোর ৪টায় সিলেটের শাহ কিরন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা-দক্ষিণ বিভাগের ধানমন্ডি জোনাল টিম

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় এজাহারভুক্ত আরও একজনকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপি’র গোয়েন্দা ও অপরাধতথ্য বিভাগ। গ্রেফতারকৃতের নাম- মোঃ মাজেদুল ইসলাম (২১)। সে বুয়েটের এমএমই বিভাগের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র।

ডিএমপি নিউজে জানা যায়, শুক্রবার (১১ অক্টোবর) ভোর ৪ টায় সিলেটের শাহ কিরন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা-দক্ষিণ বিভাগের ধানমন্ডি জোনাল টিম।

আবরার হত্যা মামলায় এপর্যন্ত ১৭জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


আরও পড়ুন: আবরার হত্যাকাণ্ড: ছাত্রলীগ নেতা ইফতির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি


উল্লেখ্য, রবিবার (৬ অক্টোবর, ২০১৯) দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের লেভেল-২ এর টার্ম ১ এর ছাত্র আবরারকে শেরেবাংলা হলের দ্বিতীয়তলা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে সাধারণ ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। সোমবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনা সংক্রান্তে নিহতের বাবা মোঃ বরকত উল্লাহ চকবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ করলে একটি হত্যা মামলা রুজু হয়।


আরও পড়ুন: আবরার হত্যা: এজাহারে নাম না থাকলেও সংশ্লিষ্টতায় গ্রেফতার ৩


পুলিশের ধারণা হত্যাকাণ্ডে ২৪-২৫ জন অংশ নিয়েছে। এরমধ্যে ১৯ জনকে শনাক্ত করে মামলার আসামি করা হয়। 

মামলার এজাহারভুক্ত আসামিরা প্রত্যকেই বুয়েটের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তারা হলেন: মেহেদী হাসান, সিই বিভাগ (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ১৩তম ব্যাচ), মুহতাসিম ফুয়াদ (১৪তম ব্যাচ, সিই বিভাগ), অনীক সরকার (১৫তম ব্যাচ), মেহেদী হাসান রবিন (কেমিক্যাল বিভাগ, ১৫তম ব্যাচ), ইফতি মোশারফ হোসেন (বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৬তম ব্যাচ), মনিরুজ্জামান মনির (পানিসম্পদ বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৫তম ব্যাজ, মাজেদুল ইসলাম (এমএমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মোজাহিদুল (ইইই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), তানভীর আহম্মেদ (এমই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), হোসেন মোহাম্মদ তোহা (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ) , জিসান (ইইই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), আকাশ (সিই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), শামীম বিল্লাহ (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), শাদাত (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), তানীম (সিই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মোর্শেদ (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মোয়াজ, মনতাসির আল জেমি (এমআই বিভাগ)।