• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩১ রাত

নব্য জেএমবি’র দুই সদস্যের ৫ দিন করে রিমান্ড

  • প্রকাশিত ০৫:২৮ সন্ধ্যা অক্টোবর ১৪, ২০১৯
জেএমবি
রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে নব্য দুই জেএমবি’র সদস্যকে আটক করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

সোমবার (১৪ অক্টেবর) তাদেরকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্তের স্বার্থে প্রত্যেকের ১০দিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ কর্তৃক গ্রেফতারকৃত পুলিশের উপর হামলাকারী নব্য জেএমবি’র দুই সদস্যের প্রত্যেকের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (১৪ অক্টেবর) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তাদেরকে আদালতে হাজির করে তদন্তের স্বার্থে প্রত্যেকের ১০দিন করে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত তাদের প্রত্যেকের ৫দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন ।


আরও পড়ুন: ঢাকায় পুলিশের ওপর হামলা: জেএমবির দুই সদস্য আটক


নব্য জেএমবি’র দুই সদস্য হলো-মোঃ মেহেদী হাসান তামিম ও মোঃ আবদুল্লাহ আজমির।

এর আগে, রবিবার রাত ৮.১৫ টায় রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানা এলাকা হতে তাদেরকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ’র কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ।

সোমবার সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, মেহেদী ও আব্দুল্লাহ কুয়েট প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) পড়ার সময় নিষিদ্ধ ‘নব্য জেএমবি’তে জড়িয়ে পড়েন। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে তারা ভোলা থেকে প্রশিক্ষণ নেন। চলতিবছরের ২৩ সেপ্টেম্বর তারা নারায়ণগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার হওয়া ফরিদ উদ্দিন রুমির ছোট ভাই জামাল উদ্দিন রফিকের নেতৃত্বে সশস্ত্র ইউনিটে যোগ দেয়। তারা ফতুল্লায় রফিকের বাড়িতে একটা বোমা তৈরির কারখানা গড়ে তোলে।

মেহেদী, আব্দুল্লাহ গুলিস্তান ও সায়েন্সল্যাবের হামলায় সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। মালিবাগ, পল্টন ও খামারবাড়িতে হামলায় ব্যবহৃত বোমা তৈরিতে তারা রফিককে সাহায্য করে, বলেন সিটিটিসি প্রধান।

গত ৩১ আগস্ট সাইন্স ল্যাবরেটরি ক্রসিংয়ে বোমা বিস্ফোরণে পুলিশের দুজন সদস্য আহত হন। অন্যদিকে ২৯ এপ্রিল ও ২৬ মে যথাক্রমে মালিবাগ ও গুলিস্তানে পৃথক বোমা বিস্ফোরণে তিনজন ট্রাফিক পুলিশসহ পাঁচজন আহত হন।