• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৯ রাত

ঢাকা কলেজ ছাড়লেন আবরারের ভাই

  • প্রকাশিত ০৩:৫২ বিকেল অক্টোবর ১৫, ২০১৯
ফাইয়াজ

ঢাকা কলেজের উপাধ্যাক্ষ এটিএম মনিরুল হক বলেন, আজ আমরা ফায়াজের কাছ থেকে একটি আবেদনপত্র পেয়েছি

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) নিহত শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ছোটভাই আবরার ফায়াজ ঢাকা কলেজে ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে তার আবেদনপত্র অনুমোদন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।      

ঢাকা কলেজের উপাধ্যাক্ষ এটিএম মনিরুল হক ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আবরার ফায়াজ ঢাকা কলেজের একাদশ শ্রেণিতে পড়তেন।  

মনিরুল হক বলেন, "আজ (১৫ অক্টোবর) আমরা ফায়াজের কাছ থেকে একটি আবেদনপত্র পেয়েছি। সেখানে তিনি ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেছেন। তিনি আর ঢাকায় থাকতে চান না এবং নিজের শহরে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে পড়াশোনা করতে চান।" 

তিনি আরও বলেন, "ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ফায়াজের ছাড়পত্রের আবেদন অনুমোদন করা হয়েছে।"

এদিকে দুই-এক দিনের মধ্যেই ফায়াজ কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে ভর্তি হবেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। 

আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ জানান, ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে দেখা করে তারা ফায়াজের ছাড়পত্র হাতে নিয়েছেন। কুষ্টিয়ায় ফিরে এসে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে তাকে ভর্তি করা হবে।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কাজী মনজুর কাদির বলেন, কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের আসন শূন্য রয়েছে। তারপরও কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) মাহবুব উল আলম হানিফ ও জেলা প্রশাসক (ডিসি) আসলাম হোসেনের মাধ্যমে জানা গেছে বিষয়টি সরাসরি প্রধানমন্ত্রী দেখছেন। এটা নিয়ে যশোর বোর্ডের চেয়ারম্যানের সঙ্গেও কথা হয়েছে। কুষ্টিয়া আসা মাত্রই ফায়াজকে ভর্তি করানো হবে। 

আবরার ফায়াজ সাংবাদিকদের জানান, "ঢাকাতে ভাই (আবরার ফাহাদ) আমার অভিভাবক ছিলেন। আমার সব কিছু ভাইয়া দেখাশোনা করত। ভাইয়া আমার ভারসার জায়গা ছিল। ভাইয়াই যখন নেই তখন আর ঢাকায় পড়াশোনা করে কী হবে? আর তাছাড়া আমার পরিবারের কেউই আমি আর ঢাকায় থাকি এটা চাচ্ছে না। যে কারণে আমি ঢাকা কলেজ থেকে ছাড়পত্র নিয়ে দু-এক দিনের মধ্যেই কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হচ্ছি।" 

কয়েক দিন আগে আবরার ফায়াজ নিরাপত্তার অভাবজনিত কারণে তিনি আর ঢাকায় পড়ালেখা করতে চান না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন। 

উল্লেক্ষ্য, গত ৬ অক্টোবর বুয়েটের শের-ই-বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা  করা হয়।