• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৩ বিকেল

নড়াইলে শিশুর মরদেহ উদ্ধার, বাবা-মামা আটক

  • প্রকাশিত ০৪:০৬ বিকেল অক্টোবর ১৭, ২০১৯
মৃত্যু
প্রতীকী ছবি

শিশুটির বাবা ও মায়ের দিককার দুই পরিবারকেই সন্দেহ করছে পুলিশ

নড়াইলের লোহাগড়া পৌর এলাকার সিঙ্গা গ্রামে সাত বছর বয়সী এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (১৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গ্রামের একটি বাগানের পাশের নালায় তার মরদেহ পাওয়া যায়। 

পুলিশের ধারণা, শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। জড়িত সন্দেহে বাবা ইলু শেখ ও মামা ইউছুফ শেখকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও পরিবারের সদস্যরা জানান, শিশুটি স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। বুধবার সকালে স্কুলে গিয়ে সে আর বাড়ি ফেরেনি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বিকেল ৪টার দিকে বাড়ির পাশের বাগানে শিশুটিকে মৃতাবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। সন্ধ্যার দিকে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। 

পুলিশ আরও জানিয়েছে, শিশুটির মা মারিয়ার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বিবাহিত ইলু শেখের। বিয়ের আগেই মারিয়া অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে সামাজিক চাপে তাকে বিয়ে করতে বাধ্য হন ইলু। শিশুটির জন্মের কিছুদিন পরে মারিয়াকে তালাক দেন ইলু। এরপর থেকে শিশুটিকে নিয়ে বাবার বাড়িতে থাকতেন ওই নারী। 

এদিকে, সন্তানের ভরণ-পোষণ দাবি করে পরিবারিক আদালতে প্রাক্তন স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন মারিয়া। আদালতের নির্দেশে প্রতিমাসে সন্তানের ভরণ-পোষণের টাকা দিতে হতো ইলু শেখকে। কয়েকমাসের টাকা না দেওয়ায় কারাগারেও যেতে হয়েছে তাকে। 

শিশুটির খালা লাকি বেগম বলেন, শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। তার শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য ইলু শেখকেই দায়ী করেন তিনি।

এ বিষয়ে লোহাগড়া থানার ওসি মো. মোকাররম হোসেন বলেন, “শিশুটির বাবা ও মায়ের দিককার দুই পরিবারই সন্দেহের তালিকায় আছে। শ্বাসরোধ করে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে সদর হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।”