• বুধবার, নভেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৩ বিকেল

প্রসবের পর নবজাতককে জঙ্গলে ফেলে দিলেন মা

  • প্রকাশিত ০৬:৪২ সন্ধ্যা অক্টোবর ১৯, ২০১৯
শিশুমৃত্যু
প্রতীকী ছবি।

অভিযুক্ত শিরিন আক্তারের মানসিক সমস্যা আছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় শিরিন বেগম নামে এক প্রসূতি মা কন্যা সন্তান প্রসবের পর নবজাতককে জঙ্গলে ফেলে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) রাতে উপজেলার ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়নের ঠাকুর কান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন (ওসি) মশির উদ্দিন মৃধা।

স্থানীয়রা জানান, শিরিন প্রসব ব্যাথা অনুভব করেন। ব্যাপারটি বুঝতে পেরে তার শাশুড়ি চিকিৎসককে ডাকার উদ্দেশে বের হন। এর মধ্যে বাথরুমে ঢোকেন শিরিন। সেখানেই তিনি একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন তিনি। পরে তিনি নবজাতককে বাড়ির পাশের একটি জঙ্গলের গর্তে ফেলে দেন।

একপর্যায়ে তার শাশুড়ি বাসায় ফিরে তাকে বাথরুম থেকে উদ্ধার করে নবজাতক কোথায় জানতে চাইলে শিরিন সব স্বীকার করেন। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য গোলাম নবী খোকন এসে পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে নবজাতকের লাশ উদ্ধার করে এবং তার মাকে আটক করে।

স্থানীয়রা জানান, অভিযুক্ত শিরিন আক্তারের মানসিক সমস্যা আছে। এ কারণেই তিনি এমনটি করে থাকতে পারেন বলে ধারণা করছেন তারা।

মতলব উত্তর থানার ওসি মশির উদ্দিন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, "প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শিরিন আক্তার আমাদের বলেন, তিনি বাথরুমে পড়ে গিয়ে প্রচণ্ড আঘাত পান। সেখানেই তার সন্তান ভূমিষ্ট হয়। কিন্তু পড়ে যাওয়ায় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। এতে বাচ্চা প্রচণ্ড দুর্বল হয়ে পড়লে তাকে বাঁশঝাড়ের মধ্যে রেখে আসেন তিনি। পরে আমরা খবর পেয়ে নবজাতকসহ ওই নারীকে থানায় নিয়ে আসি এবং নবজাতকসহ মহিলাকে মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি। সেখানে নবজাতককে মৃত ঘোষণা করা হয়।"

"বাচ্চাটি জীবিত নাকি মৃত অবস্থায় জন্মেছিল সেটি জানার জন্য নবজাতকের মরদেহ পোস্টমর্টেমে পাঠিয়েছি। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। পোস্টমর্টেম রিপোর্ট পাওয়া গেলেই সবকিছু বিস্তারিত জানা যাবে", যোগ করেন ওসি।