• মঙ্গলবার, মার্চ ৩১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:২৬ রাত

নারী উত্যক্তকারীদের পক্ষ নিয়ে তোপের মুখে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান

  • প্রকাশিত ০৮:০৮ রাত অক্টোবর ২৩, ২০১৯
নলছিটি ভাইস চেয়ারম্যান
নলছিটি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. মফিজুর রহমান শাহীন ঢাকা ট্রিবিউন

সালিশ বৈঠকে এক ব্যক্তিকে মারধর এবং উত্যক্তকারীদের পক্ষ নেন ভাইস চেয়ারম্যান

সালিশ বৈঠকে নারী শিক্ষার্থীদের উত্যক্তকারীদের পক্ষ নেওয়ায় এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়েছেন ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. মফিজুর রহমান শাহীন। 

মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় উপজেলার ভুট্টা বাজারে এ তাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। বুধবার বিকেলে চরকয়া গ্রামে তার বাংলো বাড়িতে অবস্থানকালে আবারও এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়েন শাহীন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, উপজেলার কয়া আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে উত্যক্তের অভিযোগে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সালিশ বৈঠকে এক ব্যক্তিকে মারধর এবং উত্যক্তকারীদের পক্ষ নেন ভাইস চেয়ারম্যান। এতে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে রাত ১১টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই শিক্ষার্থীকে প্রায়ই উত্যক্ত করতো রিফাত নামে এক বখাটে। রিফাত সম্পর্কে ভাইস চেয়ারম্যানের ভাগ্নে। গত ২১ অক্টোবরও ওই ছাত্রীকে উদ্দেশ্য করে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করে রিফাত ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনায় বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির কাছে অভিযোগ করেন ছাত্রীর বাবা। 

যার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সালিশ বৈঠক শুরু হয়। সেখানে বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীন ভাগ্নে রিফাতের পক্ষে সাফাই গাইতে শুরু করেন। প্রতিবাদ করায় কবির রাঢ়ি নামে এক স্থানীয়কে মারধর করেন ভাইস চেয়ারম্যান শাহীন। 

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে এলাকাবাসী ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনকে অবরুদ্ধ করে রাখে। 

এদিকে, মেয়েকে উত্যক্তের অভিযোগে বুধবার সকালে ওই ছাত্রীর বাবা রিফাত, অপি মল্লিক, তুষার তালুকদার ও হাসান মিয়ার নাম উল্লেখ করে নলছিটি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

তার অভিযোগ, বখাটেদের বিচার না করে ভাইস চেয়ারম্যান শাহীন উল্টো তাদের পক্ষ নেন। বখাটেদের উৎপাতে আমার মেয়ে বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. মফিজুর রহমান শাহীন বলেন, বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটিতে না থাকতে পেরে মেয়েকে দিয়ে এলাকার ছেলেদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন ওই ছাত্রীর বাবা। অভিযোগ সত্যি হলে আমি বিচার করবো। 

পূর্বশত্রুতার জের ধরে একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। 

এ বিষয়ে নলছিটি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুল হালিম বলেন, এক ছাত্রীকে উত্যক্তের ঘটনায় ওই এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছিল। ছাত্রীর বাবার করা অভিযোগ তদন্ত করে আমরা আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছি।