• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:১৯ রাত

১১ দফার দাবির সঙ্গে আরও ২ দফা যোগ করে বিসিবিকে চিঠি

  • প্রকাশিত ০৮:২৩ রাত অক্টোবর ২৩, ২০১৯
বিসিবি-ক্রিকেটার
সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন সাকিব আল হাসান। ছবি: মেহনাজ উদ্দিন খান/ঢাকা ট্রিবিউন

নতুন ২ দফা হলো—বোর্ডের রাজস্বের ন্যায্য ভাগ দেওয়া ও নারী ক্রিকেটারদের সঙ্গে পুরুষ ক্রিকেটারদের বেতনের ভারসাম্য

বিসিবি’তে দেওয়া চিঠিতে আগের ১১ দফা দাবির সঙ্গে আরও দু’টি দাবি যোগ করেছেন ধর্মঘটরত ক্রিকেটাররা। নতুন ২ দফা হলো—বোর্ডের রাজস্বের ন্যায্য ভাগ দেওয়া ও নারী ক্রিকেটারদের সঙ্গে পুরুষ ক্রিকেটারদের বেতনের ভারসাম্য। মোট ১৩ দফা দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে একটি চিঠি দিয়েছেন তারা। রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে বুধবার (২৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আন্দোলনরত ক্রিকেটারদের প্রতিনিধি ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদমাধ্যমের সামনে এই ১৩ দফা দাবি তুলে ধরেন।

দাবিগুলো হলো: 

১. কোয়াবের কোনও কার্যক্রম না থাকায় বর্তমান কমিটিকে অবিলম্বে বিলুপ্ত করতে হবে। একইসঙ্গে কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পদত্যাগ করতে হবে।

২. ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ আগের মতো আয়োজন করতে হবে। নিজেদের মতো করে আয়োজন করতে হবে।

৩. এবছর না হলেও পরের বছর থেকে আগের মতো বিপিএল আয়োজন করতে হবে। স্থানীয় ক্রিকেটারদের ভিত্তিমূল্য বাড়াতে হবে।

৪. প্রথম শ্রেণির ম্যাচ ফি ১ লাখ করতে হবে। গোটা বছর কোচ-ফিজিও দিতে হবে। জাতীয় ক্রিকেট লিগে প্রতি বিভাগে অনুশীলনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৫. ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো মানের বল দিতে হবে। ডিএ ১৫০০ টাকায় কিছু হয় না; তাই বাড়াতে হবে। ট্রাভেলে বিমানের ব্যবস্থা করতে হবে এবং ভালো মানের হোটেল হতে হবে।

৬. চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা ও বেতন বাড়াতে হবে।

৭. দেশি সব স্টাফের বেতন বাড়াতে হবে। কোচ থেকে গ্রাউন্ডস ও আম্পায়ার, সবার বেতন বাড়াতে হবে।

৮. ঘরোয়া ওয়ানডে বাড়াতে হবে। বিপিএল এর আগে আরেকটি টি-টোয়েন্টির টুর্নামেন্টের আয়োজন করতে হবে।

৯. ঘরোয়া ক্যালেন্ডার নির্দিষ্ট করতে হবে।

১০. বিপিএল এর পাওনা টাকা সময়ের মধ্যে দিতে হবে।

১১. ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ দুটোর বেশি খেলা যাবে না, এই নিয়ম তুলে দিতে হবে। সুযোগ থাকলে সবাই খেলবে।

১২. ক্রিকেটের ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা আনতে হবে। ক্রিকেটারদেরকে লভ্যাংশের একটি ভাগ দিতে হবে। 

১৩. বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল ভালো করছে। নারীদের ক্ষেত্রেও তাদের ন্যায্য হিসাব দিতে হবে।