• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:১৮ দুপুর

রায়ের দিনে নুসরাতের কবরে ফুটন্ত গোলাপের ছবি ভাইরাল

  • প্রকাশিত ১১:০৮ সকাল অক্টোবর ২৪, ২০১৯
নুসরাত
নুসরাতের কবরে ফুটন্ত গোলাপের এই ছবিটি ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে ভাইরাল হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

রায়ের দিনে নুসরাতের কবরে লাল ও সাদা গোলাপ ফুটেছে, এমন কয়েকটি ছবি ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী আলোচিত নুসরাত জাহান (রাফি) হত্যা মামলার রায় (বৃহস্পতিবার) ঘোষণার দিনে নুসরাতের কবরে লাল ও সাদা গোলাপ ফুটেছে, এমন কয়েকটি ছবি ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। ছবিগুলো শেয়ার করা ছাড়াও ফেসবুক ব্যবহারকারীরা একটি স্ট্যাটাসও কপিপেস্ট করছেন, সেটি হলো- ‘রাফি হত্যা মামলার রায়ের দিনে ফুল ফুটেছে কবরে, ফেনীর আদালত থাকবে সারাদেশের মানুষের নজরে’। 

এদিকে, কবরের পাশে ফুটন্ত গোলাপের ছবির নিচে আল্লহর কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন করে নুসরাতের জন্য জান্নাত কামনা করেছেন বহু ফেসবুক ব্যবহারকারী। কেউ কেউ লিখেছেন, মহান আল্লাহ ন্যায় বিচারক ও বিচার দিনের মালিক। সুতরাং নুসরাত ইহ ও পরকালে ন্যায় বিচার পাবেন।


আরো পড়ুন - আদালতে মেয়ের হত্যাকারীদের দেখে জ্ঞান হারালেন নুসরাতের মা


প্রসঙ্গত, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী ছিলেন নুসরাত। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে তিনি যৌন হয়রানির অভিযোগ করেন। এই ঘটনায় নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি দেওয়া হয়। ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথম পত্রের পরীক্ষা দিতে ওই মাদ্রাসার কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় তাকে পাশের বহুতল ভবনের ছাদে ডেকে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেওয়া হয়। ১০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাত মারা যায়। এই ঘটনায় নুসরাতের বড় ভাই বাদী হয়ে ৮ এপ্রিল সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন।





 

নুসরাতের কবরে ফুটন্ত গোলাপের ভাইরাল হওয়া একটি ছবি। ছবি: ফেসবুক থেকে 



আরো পড়ুন - মাদ্রাসার বিশাল সম্পদের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিলেন অধ্যক্ষ সিরাজ