• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:২৩ দুপুর

নারী উত্যক্তকারী ৭ ‘গ্যাংস্টার’ গ্রেফতার

  • প্রকাশিত ০৭:৫৪ রাত অক্টোবর ২৪, ২০১৯
নারায়ণগঞ্জ গ্যাংস্টার
নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা এলাকায় অভিযান চালিয়ে 'গ্যাংস্টার' সন্ত্রাসী গ্রুপের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ঢাকা ট্রিবিউন

এলাকায় অপরিচিত কেউ গেলে তাদের হেনস্থা ও ছিনতাইয়ের শিকার হতে হতো

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে ৭ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে উত্যক্ত ও শ্লীলতাহানী ছাড়াও ছিনতাইসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যকলাপের অভিযোগ।

মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে ফতুল্লার ইসদাইর গাবতলী এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১১’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিডিয়া অফিসার মো. আলেপ উদ্দিন।

গ্রেফতাররা হলেন- আল আমিন(৩৪), রফিক (৫২), আবির (২৯), ইমরান (৫১), আবির হোসেন (২৮), রুবেল(২৮) এবং মামুন হোসেন ওরফে শাওন (৩০)। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১টি বিদেশি পিস্তল, ম্যাগজিন, ৩ রাউন্ড গুলি, ২টি চাপাতি, চাইনিজ কুড়াল ও ২টি ছুরি।

র‌্যাব-১১’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলেপ উদ্দিন জানান, গ্রেফতার হওয়া ৭ জন ও তাদের গ্রুপের বাকিরা নিজেদেরকে ‘গ্যাংস্টার’ গ্রুপের সদস্য বলে পরিচয় দিয়ে থাকে। 

র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও অনুসন্ধানে জানা গেছে, তারা সবাই ওই সন্ত্রাসী গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। দীর্ঘদিন ধরে তারা ফতুল্লা এলাকার বিভিন্ন বয়সী নারীদেরকে শ্লীলতাহানি করে আসছিল। তাদের হেনস্থার মূল শিকার পোশাক কারখানার নারী কর্মীরা। এই গ্রুপের নেতৃত্ব রয়েছে উজ্জল নামে এক সন্ত্রাসী। বর্তমানে সে পলাতক। 

জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে, ‘গ্যাংস্টার’গ্রুপের সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জের গাবতলী এলাকায় ছিনতাইসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। পথচারীদের সঙ্গে থাকা ব্যাগ, মোবাইল ফোন, নারীদের ব্যাগ চাকু বা ব্লেড দিয়ে কেটে ভেতরে থাকা জিনিসপত্র নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যেতো। এলাকায় অপরিচিত কেউ গেলে ‘গ্যাংস্টার’গ্রুপের হেনস্থা ও ছিনতাইয়ের শিকার হতে হতো। 

এসব কর্মকাণ্ডের খবর পেয়ে র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ দল ‘গ্যাংস্টার’গ্রুপের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করে। অবশেষে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে তাদেরকে হাতেনাতে ধরতে সক্ষম হয়।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে আইনী প্রক্রিয়া চলমান বলে জানান র‍্যাব কর্মকর্তা আলেপ উদ্দিন।