• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৩১ রাত

জেলা প্রশাসনে ভোলার সহিংসতার তদন্ত প্রতিবেদন

  • প্রকাশিত ০১:২১ দুপুর অক্টোবর ২৬, ২০১৯
ভোলা
গত রবিবার ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ ঢাকা ট্রিবিউন

শনিবার (২৬ অক্টোবর) ভোলা জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম সিদ্দিকের কাছে প্রতিবেদনটি হস্তান্তর করা হয়। গত রবিবার (২০ অক্টোবর) ভোলার বোরহানউদ্দিনে এই সহিংসতার ঘটনা ঘটে

ভোলার বোরহানউদ্দিনে ফেসবুকের একাউন্ট হ্যাক করে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) কে কটূক্তির জেরে জনতা-পুলিশ সংঘর্ষে ৪ জন নিহত ও শতাধিক আহতের ঘটনায় গঠিত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

শনিবার (২৬ অক্টোবর) ভোলা জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম সিদ্দিকের কাছে প্রতিবেদনটি হস্তান্তর করা হয়। গত রবিবার (২০ অক্টোবর) বোরহানউদ্দিনে এই সহিংসতার ঘটনা ঘটে।


আরও পড়ুন: ভোলায় সহিংসতা: ফেসবুক আইডির হ্যাকার শনাক্ত


কমিটি প্রধান স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক মামুদুর রহমান জানান, আজ শনিবার ভোলা জেলা প্রশাসকের নিকট তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। কমিটি’র অন্য দুই সদস্য হচ্ছেন ভোলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (আইসিটি ও শিক্ষা) আতাহার মিয়া ও সদর সারকেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহসিন আল ফারুক। 

মামুদুর রহমান আরও জানান, কমিটির প্রতিবেদন প্রদানের কথা ছিল গত বৃহস্পতিবার। জেলা প্রশাসকের নিকট থেকে দু’দিন সময় বাড়িয়ে নিয়ে পঞ্চমদিনে শনিবার সকালে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন ভোলা জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম সিদ্দিকের কাছে জমা দেন। প্রতিবেদনে কী আছে জানতে চাইলে, এব্যাপারে উচ্চ আদালতের বাধ্যবাধকতা রয়েছে বলে জানান তিনি। 


আরও পড়ুন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী: ভোলায় আত্মরক্ষার্থে গুলি করেছে পুলিশ


গত রবিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে এক যুবকের শাস্তির দাবিতে আন্দোলনরত স্থানীয়দের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে চারজনের মৃত্যু ও প্রায় ২০০ জন আহত হন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে, বিপ্লব চন্দ্র শুভ নামে এক যুবকের ফেসবুক আইডি থেকে আল্লাহ ও মহানবীকে কটূক্তি করে বিভিন্নজনের কাছে মেসেজ পাঠানো হয়। এসব মেসেজের স্ক্রিনশট ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেলে এলাকায় নিন্দা ও বিক্ষোভ শুরু হয়।

বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, বিপ্লব শনিবার থানায় এসে দাবি করেন যে তার ফেসবুক আইডি হ্যাক করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে দুই সন্দেহভাজন হ্যাকারকে সনাক্ত করা হয়।