• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৭ দুপুর

আত্মসমর্পণে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত সময় পেলেন ড. ইউনূস

  • প্রকাশিত ০১:২১ দুপুর অক্টোবর ২৮, ২০১৯
ড. মুহম্মদ ইউনুস
ড. মুহম্মদ ইউনুস। ফাইল ছবি। সৈয়দ জাকির হোসেন/ঢাকা ট্রিবিউন

পাশাপাশি, বিদেশে অবস্থানরত ড. ইউনূসকে বিমানবন্দরে নামার পর থেকে এসময় পর্যন্ত গ্রেফতার বা হয়রানি না করতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে

নোবেল বিজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে দেশে ফিরে ‘নির্বিঘ্নে আত্মসমর্পণের’ সুযোগ দিতে আগামী ৭ নভেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়েছে হাইকোর্ট। পাশাপাশি, বিদেশে অবস্থানরত ড. ইউনূসকে বিমানবন্দরে নামার পর থেকে এসময় পর্যন্ত গ্রেফতার বা হয়রানি না করতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ ড. ইউনূসের ভাই ড. মুহাম্মদ ইব্রাহিমের করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই আদেশ দেন।

আদালতে ওই আবেদনের ওপর শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ।

এর আগে গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন করায় চাকরিচ্যুতির অভিযোগে দায়ের করা তিন মামলায় নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গত ৯ অক্টোবর গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালত।

এই অবস্থায় তার ভাই ড. ইউনূস যাতে দেশে ফিরে নির্বিঘ্নে আদালতে আত্মসমর্পণ করতে পারে সেই আবেদন জানিয়ে গত রবিবার রিট করেন ড. ইব্রাহিম।

প্রসঙ্গত, গত ৩ জুলাই ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে ড. ইউনূসসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের প্রস্তাবিত শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালামসহ সদ্য চাকরিচ্যুত তিন কর্মচারী। পরে আদালত ৮ অক্টোবর আসামিদের হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন।

ড. ইউনূস ছাড়াও এই মামলায় অভিযুক্ত অপর দু'জন হলেন গ্রামীন কমিউনিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন।