• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫৭ সকাল

ফেনী সীমান্তে আটক ৩ ভারতীয়কে ফেরত নিতে রাজি নয় বিএসএফ!

  • প্রকাশিত ০৯:১৮ সকাল অক্টোবর ৩১, ২০১৯
বাংলাদেশ -ভারত  সীমান্ত
বাংলাদেশ -ভারত সীমান্ত। ফাইল ছবি

আটকের সময় তাদের কাছে ভারতীয় জাতীয় পরিচয়পত্র, ইনকাম ট্যাক্সের কাগজপত্র, একটি মুঠোফোন ও নগদ ২ হাজার ৪০০টাকা পাওয়া যায়

ফেনী সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশকালে আটক তিন ভারতীয় নাগরিককে বিএসএফ ফেরত নিতে রাজি না হওয়ায় বুধবার (৩০ অক্টোবর) বিকালে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে । এর আগে একইদিন সকালে বিজিবি’র সুবার বাজার সীমান্ত ফাঁড়ির নায়েব সুবেদার কমলেশ চন্দ্র রায় বাদী হয়ে পরশুরাম মডেল থানায় অনুপ্রবেশের অপরাধে একটি মামলা করেন।

এই তিন ভারতীয় হলেন, বিধান চন্দ্র দাশ (৪৪), তার স্ত্রী স্বপ্না বালা দাশ (৩৫) ও ছেলে নিলয় চন্দ্র দাশ (১৩)। তারা ভারতের আসাম রাজ্যের গোলাঘাট জেলার ধনশিবি মহকুমার চুঙাজান থানার কিয়াজু গাও এর বাসিন্দা।

ফেনীর ৪ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. নাহিদুজ্জামান ঢাকা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) ফেনীর পরশুরাম উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের ভারতীয় সীমান্ত সংলগ্ন সত্যনগর গ্রাম থেকে বিজিবি’র সুবার বাজার সীমান্ত ফাঁড়ির সদস্যরা তাদের আটক করেন। সেসময় তারা কোনও পাসপোর্ট-ভিসা দেখাতে পারেননি ।

নারী শিশুসহ তিনজন ভারতীয় নাগরিককে আটকের পর কোম্পানি কমান্ডার পর্যায়ে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ’কে বিষয়টি জানানো হয় এবং তিন ভারতীয় নাগরিককে সেদেশে ফেরত পাঠানোর চেষ্টা করা হয়। তবে, বিএসএফ ওই নাগরিকদের ফেরত নিতে রাজি হয়নি। যদিও আটকের সময় তাদের কাছে ভারতীয় জাতীয় পরিচয়পত্র, ইনকাম ট্যাক্সের কাগজপত্র, একটি মুঠোফোন ও নগদ ২ হাজার ৪০০টাকা পাওয়া গেছে।

আদালত সূত্র জানায়, বিধান ও স্বপ্নাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আর নিলয়কে গাজীপুরে কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠাতে বলা হয়েছে।

বিধান চন্দ্র দাশ সাংবাদিকদের জানায়, তাদের পৈতৃক বাড়ি নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চর জব্বার থানার চর ভাটা গ্রামে। দুই ভাই ভারতের আসামে থাকেন এবং দুই ভাই বাংলাদেশে পৈতৃক বাড়িতেই থাকেন। তারা পৈতৃক বাড়িতে বেড়ানোর উদ্দেশে আসছিলেন।