• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৮ রাত

ফাঁসির আদেশ শুনে ১১ বছর পালিয়ে ছিলেন তিনি

  • প্রকাশিত ০৬:০০ সন্ধ্যা অক্টোবর ৩১, ২০১৯
গাজীপুর গ্রেফতার
গাজীপুরের আইনজীবী সোহেল হত্যা মামলার আসামি সজলকে বৃহস্পতিবার রাজধানীর সায়েদাবাদ এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‍্যাব ঢাকা ট্রিবিউন

২০০৮ সালের মার্চ মাসে গাজীপুরের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফিরোজ্জামান ওরফে সোহেলকে খুন করে সায়মন শাহরিয়ার ও তার সহযোগীরা

২০০৮ সালের মার্চে হত্যা করা হয় গাজীপুরের আইনজীবী ফিরোজ্জামান ওরফে সোহেলকে। এ ঘটনায় ওই বছর মার্চের ১১ তারিখ সায়মন শাহরিয়ার ওরফে সজলকে (৩০) প্রধান আসামি করে পাঁচজনের বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়।

সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে গাজীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত সজলকে পেনাল কোডের ৩০২ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আদেশ দেন। একই রায়ে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশও দেওয়া হয়। 

কিন্তু ঘটনার পর থেকে ১১ বছরেরও বেশি সময় ধরে আত্মগোপনে ছিলেন সজল।

অবশেষে বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) তাকে রাজধানীর সায়েদবাদের জনপদ মোড় এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। র‌্যাব-১ এর স্পেশালাইজ কোম্পানি পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের সঙ্গে ওই এলাকার একটি বাসায় থাকতো ফাঁসির দণ্ড পাওয়া আসামি সজল।

র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার জানান, গাজীপুরে আলোচিত অ্যাডভোকেট ফিরোজ্জামান ওরফে সোহেল হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড পাওয়া পলাতক আসামি সায়মন শাহরিয়ার ওরফে সজল সায়েদাবাদ জনপদের মোড় এলাকায় অবস্থান করছে, গোপন সূত্রে এমন খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালের মার্চ মাসে গাজীপুরের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফিরোজ্জামান ওরফে সোহেলকে জয়দেবপুর উপজেলার দক্ষিণ ছায়াবিথী এলাকায় নৃশংসভাবে খুন করে সায়মন শাহরিয়ার ও তার সহযোগীরা। আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের পাঁচ আসামির সবাইকে ফাঁসির রায় দেয় আদালত। তাদের মধ্যে সজল ছাড়া বাকি সবাই বর্তমানে জেল হাজতে।