• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫২ রাত

খুলনায় মাটি খুঁড়ে মাদ্রাসাছাত্রের লাশ উদ্ধার

  • প্রকাশিত ০৭:১১ রাত নভেম্বর ১, ২০১৯
খুলনা

স্থানীয়রা জানান, বাবুর শরীরে আঘাতের চিহ্ন ছিল; তার ঘাড় ভেঙে দেয়া হয়েছে এবং তার মুখের ভেতর থেকে গলা পর্যন্ত গাছের ডাল ঢুকানো ছিল

খুলনার রূপসা উপজেলার বাধাল গ্রামে মাটি খুঁড়ে সাড়ে আট বছর বয়সী এক মাদ্রাসাছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) দিবাগত  রাত ১২টার দিকে ঝিলেঘাট নামক স্থান থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা অবস্থায় শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত আদনান সামি বাবু ওই গ্রামের মো. জাহাঙ্গীর হেসেনের ছেলে এবং স্থানীয় কওমিয়া কারিনিয়া মাদরাসার ছাত্র ছিল। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ পাঁচজনকে আটক করেছে।

শিশুটির পরিবারের সদস্যরা জানান, বৃহস্পতিবার এশার নামাজ পড়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে মসজিদে যাওয়ার পর থেকে শিশু সামি নিখোঁজ হয়। পরিবারের লোকজন তাকে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে। পরে তার খোঁজে এলাকায় মাইকিং করা হয়। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে বাবুদের বাড়ির ২০০ গজ দূরে ঝুরঝুরে খালের পাড়ে ঝিলেঘাট নামক স্থানে মাটিতে সদ্য খোঁড়াখুঁড়ির দাগ দেখতে পেয়ে সন্দেহ হয় স্থানীয়দের। পরে সেখানে দুই ফুট মাটি খুঁড়ে বাবুর লাশ দেখে পুলিশে খবর দেন তারা।

স্থানীয়রা জানান, বাবুর শরীরে আঘাতের চিহ্ন ছিল, তার ঘাড় ভেঙে দেয়া হয়েছে। তার মুখের ভেতর থেকে গলা পর্যন্ত গাছের ডাল ঢুকানো ছিল। নির্মম নির্যাতন ও আঘাতে মাথার মগজও বের হয়ে গেছে।

খবর পেয়ে রূপসা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বলেন, "আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি শিশুটিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী তথ্য জানানো যাবে।"

রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা জাকির হোসেন বলেন, "ওই শিশুকে হত্যার পর মাটিতে পুঁতে রাখা হয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ওই এলাকার আশপাশের পাঁচজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।"