• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

নারায়ণগঞ্জে ভবন ধস: এখনো উদ্ধার হয়নি শিশু ওয়াজিদ

  • প্রকাশিত ১১:৩২ সকাল নভেম্বর ৪, ২০১৯
উদ্ধার অভিযান
রবিবার মধ্যরাতে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার অভিযান। ঢাকা ট্রিবিউন

এখনো উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস

নারায়ণগঞ্জের বাবুরাইল এলাকায় ধসে পড়া ৪ তলা ভবন থেকে এখনও আটকে পড়া শিশু ওয়াজিদকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এর আগে শনিবার (৩ নভেম্বর) ভবনটি ধসে শোয়েব (১২) নামে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রের মৃত্যু হয় ও ৭ জন আহত হন। ভবনটিতে আটকে পড়া শিশু ওয়াজিদ নিহত শোয়েবের সাথেই ওই ভবনের নিচতলায় আরবি পড়তে গিয়েছিল।

ওয়াজিদের বাবা মো. রুবেল ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, "শোয়েব ও ওয়াজিদ খালাতো ভাই। তারা ওই ভবনের নিচতলায় আরবি পড়তে গিয়েছিল। ভবন ধসে পড়লে অন্যরা বেরিয়ে আসতে পারলেও আটকে পড়ে শোয়েব ও ওয়াজিদ। শোয়েবকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। আমার ছেলেকে যেন সুস্থ অবস্থায় ফেরত পাই এই প্রার্থনা করছি।"

নারায়ণগঞ্জ জেলা ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো.আব্দুল্লাহ্ আল আরেফীন জানান,  "এখনও ওয়াজিদ নামে এক শিশু ভবনের ভেতর আটকে রয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের ৮টি ইউনিট কাজ করছে।"

স্থানীয়রা জানান, জয়বুন্নেসা নামে এক নারী এই বাড়ির মালিক। তিনি পরিবারের লোকজন নিয়ে ভবনটিতে থাকেন। শনিবার আসরের আজানের পর ভবনটি হেলে পড়ে। এসময় বাড়ির মালিকদের কেউ ছিলেন না।

ধসে যাওয়া ভবনটির পাশের ভবনের বাসিন্দা তাসলিমা জানান, "ধ্বসে পড়া বিল্ডিংটি এমনিতেই খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় ছিলো। নিচে তেমন কোনো বেজমেন্ট ছাড়াই ভবনটির চতুর্থ তলার নির্মাণ কাজ চলছিল। এই কারণেই ভবনটি ধসে পড়েছে।"

এর আগে বিকেল সোয়া চারটায় বাবুরাইলের মুন্সিবাড়ি এলাকার এইচ এম ম্যানশন নামের ওই ভবনটি ধসে পড়ে। এতে ১ শিশু নিহত ও আরও ৭ জন আহত হন।

জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন, র‍্যাব-১১ এর অধিনায়ক কর্নেল কাজী শামসের উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র আফসানা আফরোজ বিভা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বর্তমানে উদ্ধার কাজ চলমান রয়েছে।