• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৮ রাত

মেছোবাঘকে গ্রামবাসীর পিটুনি, উদ্ধার করলো বন বিভাগ

  • প্রকাশিত ০৯:৪৯ রাত নভেম্বর ৪, ২০১৯
মেছোবাঘ
অতি উৎসাহী গ্রামবাসী পিটিয়ে মেছোবাঘটিকে আহত করে। ঢাকা ট্রিবিউন

সকালে করোতোয়া নদীর কিনারে মেছোবাঘটিকে বসে থাকতে দেখা যায়। এ সময় কয়েকজন সেটিকে ধাওয়া করে ধরে এবং এলোপাথাড়ি পিটিয়ে আহত করে

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থেকে একটি মেছো বাঘ উদ্ধার করা হয়েছে। 

সোমবার (৪ নভেম্বর) সকালে উল্লাপাড়ার নেওয়ারগাছা এলাকার করোতোয়া নদী থেকে মেছোবাঘটি উদ্ধার করা হয়। 

স্থানীয়রা জানান, সকালে করোতোয়া নদীর কিনারে মেছোবাঘটিকে বসে থাকতে দেখা যায়। এ সময় কয়েকজন সেটিকে ধাওয়া করে ধরে এবং এলোপাথাড়ি পিটিয়ে আহত করে। তবে স্থানীয় কয়েকজন যুবক অতি উৎসাহী লোকজনকে নিবৃত্ত করে মেছোবাঘটি উদ্ধার করে। 

খবর পেয়ে উপজেলা বন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোর্শেদ উদ্দীন প্রমুখ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে মেছোবাঘটিকে উদ্ধার করেন ও প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে নদীর পাড়ের ঝোঁপে ছেড়ে দেন। 


আরো পড়ুন - মুন্সীগঞ্জে ‘বাঘের’ ঘোরাফেরা, আসল রহস্য কী?


এ বিষয়ে বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “এটা মূলত একধরনের বিড়াল (Fishing Cat) যাকে মেছো বাঘ বলা হয়। বাংলাদেশের সর্বত্রই এই প্রাণীটির বিচরণ রয়েছে। তবে জলাভূমি রয়েছে এমন এলাকায় বেশি দেখা যায়। মাছ, ব্যাঙ, কাঁকড়া, ইঁদুর, পাখি ইত্যাদি খায়। তবে কখনো কখনো মুরগিও ধরতে পারে। জনবসতি স্থাপন, বন ও জলাভূমি ধ্বংস, পিটিয়ে হত্যা ইত্যাদি কারণে বিগত কয়েক দশকে এই প্রাণীটির সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পেয়েছে।”

তিনি আরো বলেন, “২০০৮ সালে মেছোবাঘকে বিপন্ন প্রাণী প্রজাতির তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করেছে আইইউসিএন। তাছাড়া বন্যপ্রাণী আইন-২০১২ অনুযায়ী এই প্রজাতি সংরক্ষিত।”


আরো পড়ুন - চাঁদপুরে ধরা পড়েছে ভয়ংকর বিষধর ‘রাসেল ভাইপার’ সাপ