• বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৩ রাত

জাবি শিক্ষার্থীদের আবারও হল ছাড়ার নির্দেশ

  • প্রকাশিত ০৩:৩১ বিকেল নভেম্বর ৬, ২০১৯
জাবি
উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে বুধবার সকাল থেকে সংহতি বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষকদের। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের আবারও হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীদের বিকাল সাড়ে ৩টার মধ্যে আবারও হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

বুধবার (৬ নভেম্বর) দুপুর ২টায় হল প্রভোস্ট কমিটির এক বৈঠকের পর এই সিদ্ধান্তের কথা জানান হল প্রভোস্ট কমিটির সভাপতি অধ্যাপক বশির আহমেদ। 

অধ্যাপক বশির আহমেদ বলেন, “সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গতকাল বিকাল সাড়ে ৫টায় মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। দূর-দূরান্তের শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে ওই নির্দেশনা নমনীয় থাকে। ইতোমধ্যে ছাত্রীদের হল খালি হয়ে গেছে। ছাত্রহলে অনেকেই এখনও অবস্থান করছে। তাদের বেলা সাড়ে ৩টার মধ্যে হল ছাড়তে হবে। নইলে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” হলসংলগ্ন খাবার দোকানগুলো বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান অধ্যাপক বশির।

এদিকে, উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে বুধবার সকাল থেকে সংহতি প্রকাশ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষকরা।

এরআগে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ও মানবিকী অনুষদ ভবনের সামনে জড়ো হতে থাকেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এরপর সাড়ে ১০টার দিকে বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেন তারা। এসময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক হল ছাড়ার নির্দেশনা প্রত্যাহারের দাবিও জানান তারা।


আরও পড়ুন - উপাচার্য অপসারণের দাবিতে জাবিতে বিক্ষোভ


প্রসঙ্গত, দুর্নীতির অভিযোগে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে বেশ কিছুদিন ধরেই আন্দোলন চলছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে আন্দোলনকারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। হামলায় ৮ জন শিক্ষকসহ অন্তত ২৫ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানার নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে এসে আন্দোলনরতদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ। 


আরও পড়ুন - 'ছাত্রলীগ মারতে এলে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকরা তালি দেয়'


হামলা চলাকালে উপাচার্যের বাসভবনের নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশকে নীরব ভূমিকা পালন করতে দেখা যায়। এছাড়া উপাচার্যপন্থী শিক্ষক-কর্মকর্তাদের “ধর, ধর” স্লোগান দিয়ে হামলায় উস্কানি দিতে দেখা গেছে।

এরপর অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের ঘোষণা দেন প্রশাসন। একইদিন বিকাল পাঁচটার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশও দেওয়া হয়।