• সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৪ দুপুর

তিতাসের মৃত্যুতে যুগ্মসচিব দায় এড়াতে পারে না, হাইকোর্টে প্রতিবেদন

  • প্রকাশিত ০১:৩৫ দুপুর নভেম্বর ৭, ২০১৯
স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষ
স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষ। ইউএনবি

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এই প্রতিবেদন দাখিল করা হয়

মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি এক নম্বর ফেরিঘাটে যুগ্মসচিব আব্দুস সবুর মণ্ডলের অপেক্ষায় প্রায় তিনঘণ্টা ফেরি না ছাড়ায় স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় তিনি দায় এড়াতে পারেননা উল্লেখ করে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদন হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। পরে আদালত প্রতিবেদনটির ওপর আগামী ১৪ নভেম্বর শুনানির দিন নির্ধারণ করেন।

বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এই প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। দুই বিবাদীর পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও এ এম আমিন উদ্দিন।

এর আগে গত ৩১ জুলাই তিতাসের মৃত্যুর ঘটনা অনুসন্ধানের নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। অতিরিক্ত সচিবের নীচে নন এমন কর্মকর্তাদের নিয়ে এমন কর্মকর্তাদের দিয়ে ওই তদন্ত পরিচালনা করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত।

এছাড়াও তিতাসের মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবেনা, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। মামলার সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতেও নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ জুলাই রাতে সরকারের এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুর মণ্ডলের গাড়ির অপেক্ষায় প্রায় তিন ঘণ্টা ফেরি বসে থাকায় ঘাটে আটকে পড়া অ্যাম্বুলেন্সে স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যু হয়। এঘটনার চার দিন পরে বিষয়টি জানাজানি হলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে তিতাসের মৃত্যু নিয়ে সংবাদ প্রকাশ ও প্রচারিত হয়। এসব সংবাদ সংযুক্ত করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আইনজীবী জহির উদ্দিন লিমন।

রিটে অভিযোগ ওঠা যুগ্মসচিব ও ফেরির ম্যানেজারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়। একইসঙ্গে রিটে তিতাসের মৃত্যু ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন ও তার পরিবারকে ৩ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয় এবং ফেরিঘাটে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে অ্যাম্বুলেন্স চলাচল নিশ্চিত করতে নির্দেশনা চান রিটকারী আইনজীবী।

 এছাড়াও রিটে নৌপরিবহন সচিবের নেতৃত্বে  ঘটনার তদন্ত, তিতাসের পরিবারকে তিন কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশনা চাওয়া হয়। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সচিব, আইন মন্ত্রণালয় সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের এই রিটে বিবাদী করা হয়।