• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:২১ দুপুর

বান্দরবানে তঞ্চঙ্গ্যাদের ‘নোয়া ভাত খানা’

  • প্রকাশিত ০৪:৪৪ বিকেল নভেম্বর ৮, ২০১৯
তঞ্চঙ্গ্যা জনগোষ্ঠীর নোয়া ভাত খানা উৎসব
তঞ্চঙ্গ্যা জনগোষ্ঠীর নোয়া ভাত খানা উৎসব ঢাকা ট্রিবিউন

অনুষ্ঠানের শুরুতে জুম ক্ষেতে লক্ষ্মীপূজা এবং দেবতার উদ্দেশ্যে জুমের ফসল ও মুরগী উৎসর্গ করেন পূজারীরা

বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর দেব-দেবীর পূজার মধ্য দিয়ে “নোয়া ভাত খানা” অর্থাৎ নবান্ন উৎসব পালন করছে বান্দরবানে তঞ্চঙ্গ্যা জনগোষ্ঠী। 

শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সকালে বান্দরবান সদরে ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট-এর আয়োজনে রেইছা সিনিয়র পাড়া এলাকায় এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

বান্দরবার পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য সিং ইয়ং ম্রো’র সভাপতিত্বে “নোয়া ভাত খানা” অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জুম ক্ষেতে লক্ষ্মীপূজা এবং দেবতার উদ্দেশ্যে জুমের ফসল ও মুরগী উৎসর্গ করেন পূজারীরা। আগামী বছর জুমের ফলন যেন আরো ভালো হয় সেজন্যই এই পূজা। পূজা শেষে জুম চাষের সরঞ্জামাদি ও জুমের নতুন ফসল প্রদর্শনের পাশাপাশি পরিবেশন করা হয় তঞ্চঙ্গ্যা শিশুদের “আনিলম” নৃত্য।

পরে মিত্তিনি পূজা, নবান্ন পরিবেশন ও নতুন ধানের তৈরি পিঠা পরিবেশন করা হয় অতিথি ও উপস্থিত সবার মাঝে। 

অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া এ নবান্ন উৎসব জানুয়ারি পর্যন্ত পাহাড়ের বিভিন্ন জনগোষ্ঠী ভিন্ন ভিন্ন সময়ে পালন করে থাকেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শফিউল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস.এম মোবাশ্বের হোসেন, পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষীপদ দাশ, সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর, সদস্য কাঞ্চন জয় তঞ্চঙ্গ্যা, সিভিল সার্জন ডা. অংসুই প্রু, বান্দরবান ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী ইনস্টিটিউট এর পরিচালক মংনুচিং মার্মা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর, ভাইস চেয়ারম্যান রাজুমং মারমা, য়ইসা প্রু মারমা প্রমুখ।