• শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৬ রাত

সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে জরিপ চালানো হবে

  • প্রকাশিত ০৭:৩১ রাত নভেম্বর ১০, ২০১৯
সুন্দরবন
সুন্দরবন। সৈয়দ জাকির হোসেন/ঢাকা ট্রিবিউন

জরিপ শেষ করে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতির হিসেব বের করতে ২-৩ দিন সময় লাগতে পারে

২০০৯ সালের মতোই ২০১৯ সালে উপকূলীয় অঞ্চলকে রক্ষা করেছে সুন্দরবন। সুন্দরবনের কারণে প্রবল ঘূর্ণিঝড় "বুলবুল" দুর্বল হয়ে বাংলাদেশের উপকূলে প্রবেশ করে। এতে রক্ষা পায় উপকূলীয় এলাকার লাখো মানুষ।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে সুন্দরবনের গাছপালা উপড়ে পড়া ও ডাল পালা ভেঙ্গে যাওয়ার তথ্য জানা গেছে। সুন্দরবনের পশ্চিম বিভাগের অভ্যন্তরে থাকা বনবিভাগের সাতটি স্টেশন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে কোন বন্যপ্রাণী ক্ষতি হওয়ার ব্যাপারে তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে, সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি প্রকৃত পরিমাণ জানতে জরিপ চালানো হবে বলে জানিয়েছেন সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন। বনের অভ্যন্তরে জরিপ চালিয়ে ক্ষয়ক্ষতির হিসেব বের করতে ২-৩ দিন সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

রবিবার (১০ নভেম্বর) ঢাকা ট্রিবিউনের সাথে কথা হয় বশিরুল আল মামুনের। তিনি বলেন, "সুন্দরবনের সামগ্রিক ক্ষতি নিরূপনের চেস্টা চলছে। সার্ভে না করে সুন্দরবনের বিষয়ে অনুমান করে কিছু বলা ঠিক হবে না। প্রাথমিকভাবে কোন বন্যপ্রাণী ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সুনির্দিস্ট কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। কারণ ভাটার সময় ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হেনেছে। ফলে জলোচ্ছ্বাস ছিল না। দমকা হওয়ার কারণে বনের অভ্যন্তরের গাছপালা উপড়ে পড়া ও ডাল ভেঙে যাওয়ার খবর আছে। এ কারণেই সুন্দরবনের ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ এখনই করা কঠিন।"

সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগীয় এই বন কর্মকর্তা আরও বলেন, "আমরা চেষ্টা করছি স্বচক্ষে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে একটি সুষ্ঠু ও নির্ভুল ক্ষয় ক্ষতির তথ্য তুলে ধরতে। সেজন্য ২-৩ দিন সময় লাগতে পারে।"

তিনি জানান, বুলবুলের আঘাতে কাঠশ্বর অফিসের ছোট ট্রলার নদীতে ডুবে গেছে। কোবাদক স্টেশনের কাঠের ১০০ ফুট দীর্ঘ জেটিটি নদীতে বিলীন হয়েছে। দোবেকি টহল ফাড়ির ৪০ ফুট দীর্ঘ পন্টুনটি ভেঙে গেছে। নলিয়ান রেঞ্জ অফিসে যাতায়াতের রাস্তাটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং এই অফিস ঘিরে থাকা গাছপালা ভেঙে পড়েছে।