• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮ সকাল

চট্টগ্রামের সঙ্গে ঢাকা ও সিলেটের ট্রেন চলাচল শুরু

  • প্রকাশিত ০৩:২৬ বিকেল নভেম্বর ১২, ২০১৯
ট্রেন দুর্ঘটনা
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দবাগ রেলস্টেশনে ১১ নভেম্বর রাতে দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১৬ জন। ফোকাস বাংলা

উদয়ন এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের দিক থেকে ৭, ৮ ও ৯ নম্বর বগি তুর্ণা এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের ধাক্কায় চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনার পর লাইন সংস্কার শেষে চট্টগ্রামের সঙ্গে ঢাকা ও সিলেটের ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) নাসির উদ্দিন আহমেদ এ তথ্য জানান।

এর আগে, সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস লুপ লাইন দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কবসার মন্দবাগ স্টেশনে প্রবেশ করছিল। এ সময় ঢাকাগামী চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা তুর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস মন্দবাগ স্টেশনের মূল লাইনে দাঁড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু ট্রেনটি স্টেশনে না দাঁড়িয়ে স্বাভাবিক গতিতে চলতে থাকে। পরে উদয়ন এক্সপ্রেস লুপ লাইনে ঢোকার মুখে তুর্ণা এক্সপ্রেসের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। ফলে উদয়ন এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের দিক থেকে ৭, ৮ ও ৯ নম্বর বগি তুর্ণা এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের ধাক্কায় চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়।

এ ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। আহত হয়েছেন শতাধিক যাত্রী। 

এদিকে দুর্ঘটনার পর মঙ্গলবার ভোর ৬টার দিকে উদয়ন এক্সপ্রেস ক্ষতিগ্রস্ত তিনটি কোচ ও এর পেছনের তিনটি কোচ রেখে বাকি ছয়টি কোচ নিয়ে সিলেটে রওনা দিয়েছে। তুর্ণা এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন বিকল হয়ে গেছে।