• রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

সিলেটের গবেষক বাবলার আরও ৩টি নতুন যন্ত্র

  • প্রকাশিত ০৭:৪১ রাত নভেম্বর ১২, ২০১৯
কৃষি
নিজের কারখানায় আব্দুল হাই আজাদ বাবলা। প্রতীকী ছবি ইউএনবি

নতুন এ তিনটি যন্ত্রের উদ্ভাবক আব্দুল হাই আজাদ বাবলা বলেন, ‘পরিশ্রমের মাধ্যমে যন্ত্রগুলো তৈরি করি। যন্ত্রগুলো ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা যখন লাভবান হন তখন প্রাণটা ভরে যায়’

ডিজিটাল যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আরও তিনটি নতুন যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন সিলেটের গবেষক আব্দুল হাই আজাদ বাবলা।

এরই মধ্যে বৃক্ষ, পরিবেশ ও কৃষি প্রযুক্তি গবেষণার উদ্ভাবক বাবলা প্রায় ৪০টি যন্ত্রপাতি তৈরি করে বাজারজাত করেছেন। তার তৈরি এ যন্ত্রগুলো বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করে উপকৃত হচ্ছেন ব্যবহারকারীরা।

২০১৯ সালে তৈরি করা ৩টি যন্ত্রের একটি হলো স্বল্প ব্যয়ে বিদ্যুৎ চালিত ভুট্টা মাড়াই মেশিন। এ মেশিন ঘণ্টায় প্রায় ৩০ কেজি ভুট্টা মাড়াই করতে পারে।

দ্বিতীয়টি হলো পরিবেশ দূষণ রোধে ডাস্টবিন। এ ডাস্টবিন যে কোনো স্থানে রেখে ময়লা আবর্জনা জমা করে পরে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা যায়। এর বিশেষত্ব হলো এ ডাস্টবিন থেকে কোনো দুর্গন্ধ ছড়ায় না।

অন্যটি হলো নারিকেলের ছোবড়া থেকে ডাস্ট বের করার মেশিন। ইঞ্জিন ও বিদ্যুৎ চালিত এ মেশিনটি দিয়ে ঘণ্টায় প্রায় ৪০ কেজি নারিকেলের ছোবড়া মাড়াই করতে পারে।

সাশ্রয়ী মূল্যের এই মেশিনগুলো দিয়ে কাজ করলে ব্যবহারকারীরা লাভবান হবেন।

নতুন এ তিনটি যন্ত্রের উদ্ভাবক আব্দুল হাই আজাদ বাবলা বলেন, “পরিশ্রমের মাধ্যমে যন্ত্রগুলো তৈরি করি। যন্ত্রগুলো ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা যখন লাভবান হন তখন প্রাণটা ভরে যায়।”

যন্ত্রপাতি তৈরি করার মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে কিছুটা হলেও অংশ নিতে পারায় নিজেকে ধন্য মনে করেন গবেষক বাবলা।

এরই মধ্যে তার এসব গবেষণার স্বীকৃতি স্বরূপ ২০০৫ সালে জাতীয় কৃষি পদক পান। ২০১৫ সালে কাজের স্বীকৃতিসরূপ প্রধানমন্ত্রীর এটুআই প্রকল্প থেকে পদক পান তিনি। এছাড়া ২০১৭ সালে কৃষি গবেষণায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদক লাভ করেন বাবলা।

এ দু’টি পদকই তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে গ্রহণ করেন বলে জানান তিনি।

তার আবিষ্কৃত যন্ত্রগুলো ব্যবহার করে উৎসাহ প্রদান ও তৈরিতে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে বাবলা বলেন, “ড্রেনের কাদাবালি ও বর্জ্য উত্তোলনের জন্য একটি যন্ত্র পরীক্ষাধীন রয়েছে।”