• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৫৪ দুপুর

নাইমুল আবরারের মৃত্যুতে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট

  • প্রকাশিত ১২:৩৬ দুপুর নভেম্বর ১৪, ২০১৯
হাইকোর্ট

রিটে বিবাদী করা হয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, তথ্য সচিব, শিক্ষা সচিব, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (ডেসকো), বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষ (ডেসা), দৈনিক প্রথম আলোর প্রকাশক, সম্পাদক ও সাময়িকী কিশোর আলোর সম্পাদককে

দৈনিক প্রথম আলোর সাময়িকী কিশোর আলোর অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের শিক্ষার্থী নাইমুল আবরার রাহাতের মৃত্যুতে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় প্রতিষ্ঠানটির সাবেক শিক্ষার্থী ওবায়েদ আহমেদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ফাইজুল্লাহ ফয়েজ রিটটি দায়ের করেন।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চের অনুমতি নিয়ে তিনি রিটটি দায়ের করেছেন বলে জানান তিনি।

আগামী রবিবার (১৭ নভেম্বর) আবেদনটি শুনানির জন্য উপাস্থাপন করা হবে বলেও তিনি জানান।

রিটে বিবাদী করা হয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, তথ্য সচিব, শিক্ষা সচিব, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (ডেসকো), বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষ (ডেসা), দৈনিক প্রথম আলোর প্রকাশক, সম্পাদক ও সাময়িকী কিশোর আলোর সম্পাদককে।


আরও পড়ুন- কবর থেকে তোলা হলো নাঈমুল আবরারের মরদেহ


রিটকারী আইনজীবী জানান, প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা আদায়ের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি এই ঘটনার জন্য প্রথম আলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের বাকি বিবাদীদের প্রতি নির্দেশনা জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

এর আগে গত ৩ নভেম্বর আবরারের মৃত্যুর ঘটনায় ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিস পাঠানো হয়।


আরও পড়ুন- প্রথম আলোর কাছে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিস


১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোনো ধরনের অনুষ্ঠান পরিচালনার ক্ষেত্রে বিশেষ নিরাপত্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তথ্য সচিব, শিক্ষা সচিব এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সচিবকে অনুরোধ জানিয়ে এই নোটিস প্রদান করা হয়।


আরও পড়ুন- প্রধানমন্ত্রী: অপমৃত্যুর ঘটনায় প্রথম আলোর গাফিলতি ছিল