• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:১৭ সন্ধ্যা

প্রধানমন্ত্রী: ক্ষুদ্রঋণ দারিদ্র্য বিমোচন নয়, লালন করে

  • প্রকাশিত ১২:৫৬ দুপুর নভেম্বর ১৪, ২০১৯
প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফোকাস বাংলা

‘ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে অনেকেই বাহবা কুড়াতে চেয়েছিলেন। এরমাধ্যমে কেউ কেউ বিশ্বব্যাপী সুনামও করেছিলেন কিন্তু সেটি ছিল শুধুই ব্যক্তিগত অর্জন’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে অনেকেই বাহবা কুড়াতে চেয়েছিলেন। এরমাধ্যমে কেউ কেউ বিশ্বব্যাপী সুনামও করেছিলেন কিন্তু সেটি ছিল শুধুই ব্যক্তিগত অর্জন। মূলত ক্ষুদ্রঋণ দারিদ্র্য বিমোচন নয়, দারিদ্র্য লালন করে।”

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে সপ্তাহব্যাপী পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) উন্নয়ন মেলা-২০১৯ উদ্বোধন করে একথা বলেন তিনি।

পিকেএসএফ’র বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারীদের উৎপাদিত পণ্যপ্রদর্শনী ও বাজার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এ মেলার আয়োজন। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে মেলা।

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পিকেএসএফের সহযোগী সংস্থা, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, গবেষণা ও তথ্যপ্রযুক্তি এবং সেবামূলক প্রতিষ্ঠানসহ মোট ১৩০টি প্রতিষ্ঠানের ১৯০টি স্টল এ মেলায় স্থান পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, “দুই ফসলি ও তিন ফসলি জমি নষ্ট করে কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা যাবে না। এব্যাপারে, ভূমি ব্যবহার নীতিমালা করছে সরকার।”

নিত্যব্যবহার্য পণ্য থেকে শুরু করে প্রান্তিক ক্ষুদ্র উৎপাদকদের উৎপাদিত বিষমুক্ত কৃষিপণ্য, খাদ্যদ্রব্যসহ বিভিন্ন অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী, প্রসিদ্ধ ও সমাদৃত হাজারও পণ্যের সমাহার নিয়ে বসেছে এই মেলায়।

উন্নয়ন মেলায় পিকেএসএফ’র অর্থায়ন ও কারিগরি সহায়তায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর উৎপাদিত পণ্যের প্রদর্শনী ও বিক্রয়ের ব্যবস্থা রয়েছে।

পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলায় প্রতিবারই এমন প্রদর্শনীর সঙ্গে থাকে উন্নয়ন বিষয়ে মূল্যবান সেমিনার। এবারও পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রতিদিন একটি করে সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। সেমিনারে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, এমপি, সচিব, নীতিনির্ধারক, প্রথিতযশা অর্থনীতিবিদ, উন্নয়নকর্মী, সমাজকর্মী, গবেষক, শিক্ষাবিদ ও সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করবেন।