• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

সিরাজগঞ্জে রংপুর এক্সপ্রেসের ৮টি বগি লাইনচ্যুত (ভিডিও)

  • প্রকাশিত ০৩:১৯ বিকেল নভেম্বর ১৪, ২০১৯
ট্রেন দুর্ঘটনা
সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রংপুর একসপ্রেসের ৮টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। ঢাকা ট্রিবিউন

লাইনচ্যুত হওয়ার সাথে সাথেই ট্রেনটির তাপানুকুল বগি দু'টিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৮টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। লাইনচ্যুত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ট্রেনটির তাপানুকুল ২টি বগিতে আগুন ধরে যায়। এ ঘটনায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। তবে, কোনো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুর দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে ঢাকা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন উল্লাপাড়া রেলওয়ে স্টেশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, লাইনম্যানের সবুজ সংকেত পেয়ে ট্রেনটি উল্লাপাড়া থেকে ঈশ্বরদীর উদ্দেশে ছাড়ে কিন্তু স্টেশনের মূল প্ল্যাটফর্ম পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই হঠাৎ করে ট্রেনটির ইঞ্জিন উপরের দিকে উঠতে শুরু করে। এতে রংপুর এক্সপ্রেসের ৮টি বগি লাইনচ্যুত হয়। তবে, কোনো বগিই উল্টে যায়নি। লাইনচ্যুত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাপানুকুল দু'টি বগিতে আগুন ধরে যায়।

মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, "১৫/২০ জন আহত হলেও কোনো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। লাইনম্যানের কোনো ভুল ছিল কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।"


ঘটনাস্থলে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, স্বাস্থ্যকর্মী ও স্থানীয় জনগণ। দুর্ঘটনার কারণে উত্তরবঙ্গের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার রেল যোগাযোগ সাময়িক বন্ধ রয়েছে।

উল্লাপাড়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার নাজির হোসেন বলেন, "কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। তাদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। দু’ঘণ্টা পর ইঞ্জিন ও বগির আগুন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে।"

এদিকে দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগ (রাজশাহী ও পাকশী) ও জেলা প্রশাসন থেকে পৃথক ৩টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।   

পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগের (রাজশাহী) মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মিহির ক্রান্তি ঘোষ জানান, দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে চীফ অপারেটিং সুপাররেনটেনডেন্ট মোঃ শহিদুল ইসলামকে প্রধান করে ৪ সদস্যদের একটি তদন্ত দল গঠন করা হয়েছে।

পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগের (পাকশী) বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) মো. মিজানুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, "বিভাগীয় ট্রাফিক অফিসার (ডিটিও) মো. আবদুল্লাহ আল মামুনকে আহবায়ক করে ৫ সদস্যদের আরেকটি তদন্ত দল গঠন করা হয়েছে। আগামী ৫ কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।"

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ জানান, "ট্রেন দুর্ঘটনার কারন অনুসন্ধানে জেলা প্রশাসন থেকে পৃথক একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ফিরোজ মাহমুদের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৫ দিন সময় দেওয়া হয়েছে।"