• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫২ রাত

বিজ্ঞানের ছাত্র হয়েও পরীক্ষা দিতে হবে মানবিকে!

  • প্রকাশিত ০৩:০৯ বিকেল নভেম্বর ১৫, ২০১৯
কুড়িগ্রাম জাহেদল
বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র হওয়া সত্ত্বেও এসএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশনে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী হিসেবে দেখানো হয়েছে কুড়িগ্রামের জাহেদুলকে। ঢাকা ট্রিবিউন

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে শিক্ষাজীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের আগে এমন বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়েছে ক্যান্সারকে সঙ্গী করে বেঁচে থাকা এই শিক্ষার্থীকে

ভবিষ্যতে কম্পিউটার নিয়ে পড়াশোনার ইচ্ছা, তাই নবম শ্রেণিতে বিজ্ঞান বিভাগ বেছে নিয়েছিল কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ঘোগাদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জাহেদুল ইসলাম। ২০১৮ সাল থেকে বিজ্ঞান বিভাগেই ক্লাস করে আসছিল সে। কিন্তু নির্বাচনী পরীক্ষার পর এসএসসি'র ফরম পূরণ করতে গিয়ে জাহেদুল জানতে পারে, বিজ্ঞান নয়, তাকে পরীক্ষা দিতে হবে মানবিক বিভাগ থেকে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে শিক্ষাজীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের আগে এমন বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়েছে ক্যান্সারকে সঙ্গী করে বেঁচে থাকা এই শিক্ষার্থীকে।

২০১৭ সালে ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ে জাহেদুলের। কিন্তু অদম্য মনোবল নিয়ে সে চালিয়ে আসছিল পড়াশোনা। আগামী বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা তার। তার বাবা নুরুল আমিন পেশায় একজন দিনমজুর।

জাহেদুলের ভাষায়, ‘‘আমি দুই বছর বিজ্ঞান বিভাগের ক্লাস করেছি। স্বাভাবিকভাবেই আমার প্রস্তুতি বিজ্ঞান বিষয়ে। এখন স্কুলের শিক্ষকরা বলছেন আমাকে নাকি মানবিক বিভাগ থেকে পরীক্ষা দিতে হবে। আমার পক্ষে এটা অসম্ভব। আমি তিনবছর ধরে শরীরে ক্যান্সার নিয়ে চলছি। মাত্র দুইমাসে আমি কিভাবে মানবিক বিভাগের সিলেবাস সম্পূর্ণ করবো? আমি বিজ্ঞান বিভাগ থেকেই পরীক্ষা দিতে চাই।’’

ক্যান্সারকে জয় করে স্বপ্ন পূরণের জন্য এগিয়ে যেতে সবার কাছে দোয়া চেয়েছে সে।

এবিষয়ে সামাজিক সংগঠন ‘‘ছায়া’’-র সাধারণ সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে অর্থ সংগ্রহ করে ব্লাড ক্যান্সারে (একিউট লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকোমিয়া) আক্রান্ত জাহেদুলের চিকিৎসা চলছে। গতবছর তাকে ভারতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পড়াশোনার প্রতি তার অগাধ আগ্রহ। দুইবছর ধরে বিজ্ঞানের ক্লাস করে স্কুল কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে তাকে মানবিক বিভাগে বোর্ডে তার রেজিস্ট্রেশন হয়েছে। এর দায় স্কুল কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না। বোর্ড ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে সঠিক ও বাস্তবসম্মত সমাধান করবেন।

জাহেদুলের রেজিস্ট্রেশনে ভুল হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ঘোগাদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম মন্ডল জানান, বোর্ডের কম্পিউটারে ভুল এন্ট্রি দেওয়ার কারণে অনাকাঙ্খিতভাবে জাহেদুলের রেজিস্ট্রেশন মানবিক বিভাগে হয়েছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে বোর্ডে যোগাযোগ করে তার রেজিস্ট্রেশন সংশোধনের চেষ্টা শুরু করেছি। দেখা যাক কী করা যায়।