• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

প্রতিবন্ধী তরিকুলের একমাত্র আয়ের উৎসটিও নিয়ে গেলো চোরেরা

  • প্রকাশিত ০৪:০৬ বিকেল নভেম্বর ২৫, ২০১৯
গোপালগঞ্জ চুরি
গোপালগঞ্জ আড়াই শ' শয্যা সদর হাসপাতালের সামনে থেকে চুরি গেছে প্রতিবন্ধী তরিকুলের আয়ের একমাত্র উৎস ইজিবাইকটি ঢাকা ট্রিবিউন

জন্মের ৬ মাস পর পোলিওতে আক্রান্ত হয়ে ডান পা অচল হয়ে যাওয়ায় লাঠিতে ভর করে চলাচল করতে হয় তরিকুলকে। গত আড়াই বছর ধরে অন্য মালিকের ইজিবাইক ভাড়া নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল সে

স্বজনদের কাছ থেকে ধার-দেনা আর ঋণ করে একটি ইজিবাইক কিনেছিলেন নড়াইলের শারীরিক প্রতিবন্ধী যুবক তরিকুল ইসলাম মোল্লা (২৮)। ইজিবাইকের আয়ে বেশ ভালোই চলছিল তার ৮ সদস্যের সংসার। কিন্তু শনিবার (২৩ নভেম্বর) গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে যাত্রীবেশী চোরেরা নিয়ে গেছে তার ইজিবাইকটি।

আয়ের একমাত্র অবলম্বনটি হারিয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে তরিকুল এখন দিশেহারা। তার বাড়ি নড়াইলের কালিয়া উপজেলার ডুমুরিয়া গ্রামে। ইজিবাইক চুরির ঘটনায় গোপালগঞ্জ সদর থানায় রবিবার বিকেলে একটি অভিযোগ করেছেন তরিকুলের ভাই ওহিদুজ্জামান মোল্লা।

ওহিদুজ্জামান জানান, জন্মের ৬ মাস পর পোলিওতে আক্রান্ত হয়ে ডান পা অচল হয়ে যাওয়ায় লাঠিতে ভর করে চলাচল করতে হয় তরিকুলকে। গত আড়াই বছর ধরে অন্য মালিকের ইজিবাইক ভাড়া নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল সে। কয়েকজন আত্মীয়ের দেওয়া ও দু'টি বেসরকারি সংস্থা থেকে নেওয়ার ঋণের অর্থ দিয়ে দিয়ে গত ২৭ অক্টোবর ইজিবাইকটি কিনেছিল তরিকুল। 

২৩ নভেম্বর নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কালীনগর থেকে কয়েকজন যাত্রীকে নিয়ে গোপালগঞ্জ আড়াই শ’ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে গেলে যাত্রীবেশী চোরেরা তরিকুলকে জুসের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে ইজিবাইক, সঙ্গে থাকা মুঠোফোন ও টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর তিনি গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরেন।

ভুক্তভোগী তরিকুল বলেন, “আমি পঙ্গু হলেও ভিক্ষা করিনা। ইজিবাইক চালিয়ে রোজগার করি। ধার-দেনা করে ইজিবাইকটি কিনেছিলাম। আয়ের একমাত্র অবলম্বনটি চুরি যাওয়ায় বৃদ্ধা মাসহ ৮ জনের সংসার নিয়ে আমি বিপদে পড়েছি। স্বজন ও এনজিও'র ঋণ কীভাবে পরিশোধ করবো, তা নিয়ে মহা অনিশ্চয়তায় পড়েছি।”

এ বিষয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ইজিবাইক চুরির ঘটনায় আমরা একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ক্ষতিগ্রস্ত ইজিবাইক চালক একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। তার ইজিবাইকটি উদ্ধারে আমরা বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে অভিযান শুরু করেছি।