• রবিবার, এপ্রিল ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:১৭ বিকেল

আবরার হত্যা: পলাতক চার আসামির সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ

  • প্রকাশিত ১২:৫৭ দুপুর ডিসেম্বর ৩, ২০১৯
আবরার ফাহাদ
নিহত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ। সংগৃহীত

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. কায়সারুল ইসলাম এ আদেশ দেন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদল্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার পলাতক চার আসা‌মির সম্প‌ত্তি জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

মঙ্গলবার (৩ ডি‌সেম্বর) ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. কায়সারুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

পলাতক চার আসা‌মি হ‌লেন- মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম, মোর্শেদ অমর্ত্য ও মোস্তফা রাফিদ। এর ম‌ধ্যে মোস্তফা রা‌ফিদের নাম এজাহা‌রে ছিল না। অভিযোগপত্রে তার নাম যুক্ত করা হয়। 

গত ১৩ নভেম্বর আবরারের বাবার দায়ের করা মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ৷ পরে ১৮ নভেম্বর অভিযোগপত্র গ্রহণ করে পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

পরবর্তীতে গত ২১ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৬ জন শিক্ষার্থীকে আজীবন বা স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করে বুয়েট কর্তৃপক্ষ। শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ৬ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তিও দেওয়া হয়। 


আরও পড়ুন - বুয়েটে র‍্যাগিং ও রাজনীতি সংশ্লিষ্টতা থাকলেই বহিষ্কার


এ বিষয়ে ৩ ডিসেম্বরের মধ্যে পরোয়ানা তামিলের বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। নির্ধা‌রিত সময়ের মধ্যে আসা‌মি‌রা গ্রেফতার না হওয়ায় তাদের সম্প‌ত্তি জব্দের নির্দেশ দেওয়া হলো। আগামী ৫ জানুয়া‌রি ম‌ধ্যে ক্রো‌কের আদেশের বিষ‌য়ে প্র‌তি‌বেদন দি‌তে বলা হ‌য়ে‌ছে।

মামলায় অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে এজাহারভুক্ত ১৯ জন এবং এজাহার বহির্ভুত ৬ জন। গ্রেফতারদের মধ্যে ৮ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। 

প্রসঙ্গত, ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

এ ঘটনার পরদিন নিহতের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি মামলা করেন।