• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

যৌন নিপীড়ন: গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে অব্যাহতি

  • প্রকাশিত ১১:১৪ সকাল ডিসেম্বর ৫, ২০১৯
হুমায়ূন কবির- গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়
গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন হয়রানির অভিযোগ তদন্তাধীন থাকায় সব ধরনের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে শিক্ষক হুমায়ূন কবিরকে ঢাকা ট্রিবিউন

শিক্ষক হুমায়ূন কবিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের লিখিত অভিযোগ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিদেশি শিক্ষার্থী

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক হুমায়ূন কবিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগের তদন্ত চলমান থাকায় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে সাময়িক বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (৪ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. নূরউদ্দিন আহমদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেওয়া হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্তাধীন থাকায় যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সব ধরনের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে সাময়িকভাবে বিরত রাখা হলো।


গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়ন, সহকারী প্রক্টরের পদ স্থগিত 


পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই আদেশ বহাল থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ নভেম্বর শিক্ষক হুমায়ূন কবিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের লিখিত অভিযোগ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিদেশি শিক্ষার্থী। এ বিষয়ে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের প্রধান ও আইন বিভাগের শিক্ষক মানসুরা খানমকে প্রধান করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি গঠনের পর হুমায়ুন কবিরের সহকারী প্রক্টরের পদ স্থগিত করা হয়। এ যৌন হয়রানির প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদেশি শিক্ষার্থীদের একটি অংশ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. নূরউদ্দিন আহমদ বলেন, যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সংক্রান্ত গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে সাময়িকভাবে বিরত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।