• রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:২৭ সন্ধ্যা

ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের বিনা ভাড়ায় কেন্দ্রে পৌঁছে দেবেন পরিবহন শ্রমিকরা

  • প্রকাশিত ০১:৫৩ দুপুর ডিসেম্বর ৫, ২০১৯
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় টাঙ্গাইল
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা ট্রিবিউন

এছাড়াও, প্রস্তুত থাকবে মেডিকেল টিম। যানজট মোকাবেলায় কাজ করবে স্কাউট টিম। শীত নিবারণে দেওয়া হবে কম্বল। শহরের সব পাবলিক টয়লেট বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন ভর্তিচ্ছুরা

টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শুক্র ও শনিবার (৫ ও ৬ ডিসেম্বর)। প্রতিবছরই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে টাঙ্গাইলে লাখখানেক মানুষের সমাগম হয়। বিগত বছরগুলোতে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের সঙ্গে আসা অভিভাবকদের পড়তে হয়েছে আবাসনসহ বিভিন্ন সমস্যায়। তবে এবছর তাদেরকে যাতে অনাকাঙ্খিত সমস্যায় পড়তে না হয় সেজন্য পারস্পরিক সমন্বয়ের ভিত্তিতে বেশকিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলার সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী ও শ্রমিক সংগঠনগুলো। 

এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বিনা ভাড়ায় পরীক্ষাকেন্দ্রে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া। এই সিদ্ধান্তের উদ্যোক্তা টাঙ্গাইল জেলা অটোরিকশা, অটোটেম্পু ও সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়ন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নির্বিঘ্ন যাতায়াত নিশ্চিত করতে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন।

তিনি বলেন, ইতোপূর্বে মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে সময়মতো কেন্দ্রে পৌঁছাতে না পারায় পরীক্ষায় বসতে না পারেননি অনেক শিক্ষার্থী। ভর্তি পরীক্ষার সময় সুযোগ নিয়ে যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের ঘটনাও ঘটেছে। এসব সমস্যা দূর করতে এবছর বিনামূল্যে পরিবহন সেবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া, পরীক্ষার্থীদের জন্য এই দুইদিন ৬টি বাস বরাদ্দ করেছে টাঙ্গাইলের বাস কোচ মিনিবাস মালিক সমিতি। এই বাসগুলো বিনামূল্যে পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে পৌঁছে দেবে। ঢাকা ট্রিবিউন’কে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাস কোচ মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব গোলাম কিবিরয়া বড়মনি। 

পাশাপাশি, টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র জামিলুর রহমান মিরন জানিয়েছেন, শহরের আবাসিক হোটেল ও খাবার দোকানগুলোতে নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করা হবে খাবার। সব মসজিদ-মন্দির-মিলনায়তন শিক্ষার্থীদের থাকার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন, ব্যাগ ও অন্যান্য জিনিসপত্র বিনামূল্যে রাখার জন্য স্থাপন করা হয়েছে বুথ। 

এছাড়াও, শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করবেন পাঁচ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবী। প্রস্তুত থাকবে মেডিকেল টিম। যানজট মোকাবেলায় কাজ করবে স্কাউট টিম। শীত নিবারণে দেওয়া হবে কম্বল। শহরের সব পাবলিক টয়লেট বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন ভর্তিচ্ছুরা।

ভর্তি পরীক্ষা নির্বিঘ্ন করতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা।

জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, ‘‘হোটেলগুলোতে জায়গা না পেয়ে যেসব শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা মসজিদ, মন্দির, মিলনায়তনে থাকবেন পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথমবর্ষ প্রথম সেমিস্টারের বিএসসি (ইঞ্জিনিয়ারিং), বিবিএ, বি.ফার্ম ও বিএসসি (অনার্স) কোর্সের ভর্তি পরীক্ষায় চারটি ইউনিটের ১৬টি বিভাগে ৮১৫টি আসনের বিপরীতে মোট পরীক্ষার্থী ৬৫৩৬৬ জন। এমসিকিউ পদ্ধতিতে ৬ ডিসেম্বর শুক্রবার সকালে ‘‘এ’’ ইউনিটের জন্য মোট ২৬টি কেন্দ্রে ও বিকেলে ‘‘বি’’ ইউনিটের জন্য মোট ৩৪টি কেন্দ্রে এবং ৭ ডিসেম্বর শনিবার সকালে ‘‘সি’’ ইউনিটের জন্য মোট ১৪টি কেন্দ্রে ও বিকেলে ‘‘ডি’’ ইউনিটের জন্য মোট ৯টি কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। 

এবার প্রতিআসনে ৮০ জন শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. আলাউদ্দিন বলেন, ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিসহ যেকোনো ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সতর্ক রয়েছে। 

আসন বিন্যাসসহ ভর্তি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নোটিস বোর্ড ও ওয়েবসাইট www.mbstu.ac.bdwww.mbstu-admission.org থেকে জানা যাবে।