• সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৫ রাত

১৯ দিন ধরে আটকে রেখে ধর্ষণ

  • প্রকাশিত ০৯:৪০ সকাল ডিসেম্বর ৯, ২০১৯
গণধর্ষণ
প্রতীকী ছবি বিগস্টক

এছাড়া ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দেওয়া হয় ওই কিশোরীকে

ঝালকাঠিতে এক কিশোরীকে অপহরণের পর ১৯ দিন ধরে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্যের বিরুদ্ধে।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে কিশোরীর মা বাদী হয়ে দু'জনের নামে ঝালকাঠি থানায় মামলা দায়ের করেন। এদিকে ধর্ষণের ঘটনাগুলো মোবাইলে ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছে ওই কিশোরীকে। তবে প্রভাবশালী সাবেক ওই ইউপি সদস্যের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না নির্যাতিত কিশোরী ও তার পরিবার।

এ মামলার প্রধান আসামি এমদাদুল থলপহরী। তিনি নবগ্রাম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আমজেদ আলী থলপহরীর ছেলে ও সাবেক ইউপি সদস্য।

ভুক্তভোগী কিশোরীর অভিযোগ, গত ৮ নভেম্বর সদর উপজেলার বাউকাঠি গ্রামের বাড়ি থেকে পিপলিতা গ্রামে ফুপুর বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলো। পথে প্রতিবেশী এমদাদুল তাকে জোর করে স্থানীয় একটি বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে। আর ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে এমদাদুলের আত্মীয় বর্ষা নামের একটি মেয়ে। পরে ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার কথা বলে এমদাদুল একাধিকবার তাকে ধর্ষণ করে।

ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে ১৫ নভেম্বর এমদাদ ওই কিশোরীকে অপহরণ করে বাকেরগঞ্জের বোয়ালিয়া গ্রামে ফাতেমা নামের অপর নারীর বাসায় আটকে রেখে ধর্ষণ করতো। এমনকি ফাতেমা নামের ওই নারী অন্য পুরুষ এনে কিশোরীকে নির্যাতন করাতো।

গত ৫ ডিসেম্বর ভুক্তভোগী কিশোরী সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে পূর্বচাঁদকাঠি এলাকায় আসলে স্থানীয়রা থানায় খবর দেয়। পুলিশ আসলে মেয়েটি পুলিশকে বিস্তারিত জানায়।

এদিকে মেয়ে নিখোঁজের ঘটনায় বাবা ঝালকাঠি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছিলেন। কিন্তু এমদাদ থলপহরী প্রভাবশালী হওয়ায় থানায় মামলা না করার জন্য চাপ দিতে থাকে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী কিশোরীর পরিবার।

মেয়েটির মা বলেন, “আমার মেয়ে সবকিছু পুলিশের কাছে অভিযোগ করলেও পুলিশ তেমন কোনো গুরুত্ব দেয়নি। এমাদুল প্রভাবশালী, আর আমরা গরিব মানুষ। আমার মেয়ের সাথে যে অন্যায় হয়েছে, আমরা তার বিচার চাই।”

ঝালকাঠি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খলিলুর রহমান বলেন, “মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে।”