• শুক্রবার, এপ্রিল ১০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩২ রাত

পুলিশ সেজে সোনা ডাকাতি!

  • প্রকাশিত ০২:৫৬ দুপুর ডিসেম্বর ১০, ২০১৯
ডাকাতি গাজীপুর
গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় ৯ ডিসেম্বর পাঁচটি স্বর্ণের দোকানে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ঢাকা ট্রিবিউন

ওসি এ কে এম মিজানুল হক বলেন, র‌্যাব বা পুলিশের কোনো সদস্য ডাকাতির এ ঘটনায় জাড়িত নন 

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় পাঁচটি স্বর্ণের দোকানে পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (৯ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার উলুখোলা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। 

ডাকাতি হওয়া দোকানগুলো হলো-উলুখোলা বাজারের চঞ্চল শিল্পী জুয়েলার্স, সন্দ্বীপ জুয়েলার্স, রাজীব জুয়েলার্স, সোনালি জুয়েলার্স ও রূপসী জুয়েলার্স।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুল হক ডাকাতি কথা স্বীকার করলেও, এতে পুলিশের কোনো সদস্য জড়িত নয় বলে জানান।

উপজেলার নাগরী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য বাবলু রোজারিও বাজারের পাহারাদারদের বরাত দিয়ে জানান, রাত সাড়ে ১১টার দিকে ৩০-৪০ জনের একদল ডাকাত পুলিশের পোশাক পরে বাজারে প্রবেশ করে। তারা বাজারের সাত পাহারাদার এবং বাজারে উপস্থিত ২০-৩০ জন লোককে ভয় দেখিয়ে একটি দোকানে আটকে রাখে। এসময় তারা বাজারের প্রতিটি প্রবেশ পথে নিজেদের লোক দিয়ে পাহারা বসায়।

আটক পাহারাদাররা জানান, ডাকাতরা নিজেদের পুলিশ ও র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) পরিচয় দিয়ে তাদের একটি কাপড়ের দোকানে নিয়ে যায়। এসময়য় তাদের সঙ্গে থাকা টাকা ও মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন মালামাল লুট করে দোকানের সাটার আটকে দেওয়া হয়।

সন্দ্বীপ জুয়েলার্সের মালিক সুকান্ত বলেন, ডাকাতেরা পাঁচটি সোনার দোকানের তালা ভেঙে সিন্দুকে থাকা ১০০ ভরির বেশি স্বর্ণালংকার লুট করেছে। দোকানে আটক পাহারাদার ও অন্যান্যরা চিৎকার শুরু করলে এলাকাবাসী গিয়ে দোকানের সাটার খুলে তাদের উদ্ধার করে।

ওসি এ কে এম মিজানুল হক বলেন, যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা ডাকাতদলের পেশাদার সদস্য। র‌্যাব বা পুলিশের কোনো সদস্য ডাকাতির এ ঘটনায় জাড়িত নয়।