• শনিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৬ সকাল

প্লাস্টিক কারখানার আগুন: নিহতদের পরিবার ১ লাখ টাকা করে পাবে

  • প্রকাশিত ০৯:৫২ রাত ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
কেরানীগঞ্জের কারখানায় অগ্নিকাণ্ড
১১ ডিসেম্বর ঢাকার কেরাণীগঞ্জের একটি কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ঢাকা ট্রিবিউন

নিহতদের পরিবারকে এক লাখ টাকা করে ও যারা আহত হয়ে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন তাদের চিকিৎসা সহায়তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে

ঢাকার কেরানীগঞ্জে প্লাস্টিক সামগ্রী তৈরির কারখানা প্রাইম পেট অ্যান্ড প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের বুধবারের (১১ ডিসেম্বর) ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের জন্য আর্থিক সহায়তার ঘোষণা দিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান।

অগ্নিকাণ্ডে যে সকল শ্রমিক নিহত হয়েছেন তাদের পরিবারকে এক লাখ টাকা এবং যারা আহত হয়ে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন তাদের চিকিৎসা সহায়তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) তথ্য অধিদপ্তরের তথ্যবিবরণী থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শোক প্রকাশ করে প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী গঠিত শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিল থেকে এ টাকা প্রদান করা হবে।

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের হিজলতলা এলাকায় বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে প্রাইম পেট অ্যান্ড প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কারখানায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের পর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

আগুন লাগার ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৩ জনে দাঁড়িয়েছে।


আরও পড়ুন - কেরাণীগঞ্জে কারখানার আগুনে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯ 


ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে এবং বৃহস্পতিবার ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া।

দগ্ধ আরও ২১ জন বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন আছেন। তাদের অবস্থাও ভালো নয় বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে ও বৃহস্পতিবার মারা যান ওই কারখানার কর্মী ইমরান (১৮), বাবুল (৩২), আলম হোসেন, রায়হান (১৬), জিয়ারুল ইসলাম, খালেক, সালাউদ্দিন (৩২), মো. সুজন, জাহাঙ্গীর (৫৫), ফয়সাল (২৬), মেহেদী (২০) ও আব্দুর রাজ্জাক (৪৫)।

ওই কারখানার ধ্বংসস্তুপ থেকে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বুধবার জাকির হোসেন (২২) নামে এক যুবকের পোড়া দেহ উদ্ধার করেছিল।

প্রত্যক্ষদর্শী ও কারখানার আহত শ্রমিকরা জানান, প্লাস্টিকের ওয়ানটাইম গ্লাস তৈরির সময় হঠাৎ একটি গ্যাস সিলিন্ডারের বিস্ফোরণ ঘটলে মুহূর্তেই কারখানার ভেতরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। পরে ফায়ার সার্ভিসের ১২টি ইউনিট সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।