• শনিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫৬ সকাল

জন্মদিন পালনে অ্যালকোহল পান, প্রাণ গেল ৩ বন্ধুর

  • প্রকাশিত ১০:৩০ রাত ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
কুষ্টিয়া
বিকেএসপির বাস্কেট বল খেলোয়াড় সাজিদ ও তার বন্ধু ফাহিম। সংগৃহীত

তারা এনার্জি ড্রিংকয়ের সাথে অ্যালকোহল মিশিয়ে সেবন করে

কুষ্টিয়ায় অ্যালকোহল পানে তিন বন্ধুর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অপর ৩ জনের অবস্থাও আশংকাজনক বলে জানা গেছে। 

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার তাপস কুমার সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তাদের সবার বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে। 

মৃতরা হলেন- শহরের আড়ুয়াপাড়া এলাকার সাজিদ (১৯), কুঠিপাড়া এলাকার ফাহিম (১৮) এবং থানাপাড়া এলাকার পাভেল (২০)। এ ঘটনায় সরুজ (২২) ও শান্ত (২৩) নামে দুই জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও আতিকুল নামে আরও এক যুবক কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহতদের পারিবার সূত্রে জানা গেছে, ফাহিমের জন্মদিন উপলক্ষে তার বন্ধু সাজিদ, পাভেল, সুরুজ, শান্তি ও আতিকুল বিকালে শহরের পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে একসাথে মিলিত হয়। এ সময় তারা এনার্জি ড্রিংকয়ের সাথে অ্যালকোহল মিশিয়ে সেবন করে। সেবনের কিছুক্ষণ পরে তাদের শরীরের ভেতর অস্থির লাগলে সবাই কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। এদের মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাজিদ, ফাহিম ও পাভেলের মৃত্যু হয়।

ডাক্তার তাপস কুমার সরকার বলেন, বৃহস্পতিবার বিকালে ছয় তরুণকে তাদের স্বজনরা হাসপাতালে নিয়ে আসেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেলে মারা যান সাজিদ। সন্ধ্যায় মারা যান ফাহিম নামে আরও একজন। রাত ৭টা ১৫ মিনিটের দিকে পাভেল নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে অ্যালকোহল পানে তাদের মৃত্যু হয়েছে। 

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার নুরুন নাহার বেগম বলেন, “বৃহস্পতিবার বিকালে ছয় তরুণকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে এর মধ্যে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।”  

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা বলেন, “রাফি হোমিও হল থেকে বন্ধুরা মিলে অ্যালকোহল কিনেছিল। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে।”